Expert Speak Health Express
Published on Nov 09, 2022 Updated 12 Days ago

ভারতের আসন্ন সভাপতিত্ব বিশ্ব স্বাস্থ্য প্রশাসনকে আরও গণতান্ত্রিক এবং প্রমাণনির্ভর করে তোলার সুযোগ করে দিতে পারে।

ভারতের জি২০ সভাপতিত্ব: বিজ্ঞান, নীতি এবং রাজনীতির মধ্যে সেতুবন্ধন
ভারতের জি২০ সভাপতিত্ব: বিজ্ঞান, নীতি এবং রাজনীতির মধ্যে সেতুবন্ধন

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে অতিমারি এবং মহামারি ক্রমশই বিশ্বব্যাপী ব্যাপকতর আকার ধারণ করেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ডিরেক্টর জেনারেল (হু ডিজি) আই এইচ আর ইমার্জেন্সি  কমিটিকে (ইসি) এ কথা নির্ধারণ করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন যে, কোনও প্রাদুর্ভাবকে পাবলিক হেলথ ইমার্জেন্সি অফ ইন্টারন্যাশনাল কনসার্ন (পিএইচইআইসি) বলে ঘোষণা  করা যায় কি না। এই কমিটি হু ডিজি-কে আপৎকালীন, অন্তর্বর্তী পরামর্শ প্রদান করে। ২০০৫ সালে ইন্টারন্যাশনাল হেলথ রেগুলেশনস বা আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য বিধি (আইএইচআর) প্রণয়নের পর থেকে মাঙ্কিপক্স-সহ সাতটি পিএইচইআইসি-র ঘোষণা করা হয়েছে। যদিও সাম্প্রতিক কালের অভিজ্ঞতা প্রয়োজনের সময়ে পিএইচইআইসি-র চিহ্নিতকরণে আইএইচআর-এর ত্রুটি দর্শিয়েছে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়, ২০১৪ সালে ইবোলা ভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণ সত্ত্বেও এটিকে একটি পিএইচইআইসি ঘোষণা করতে হু-এর প্রায় চার মাস সময় লেগেছিল।

অপ্রতুল প্রতিবেদন এবং বিশেষজ্ঞদের মতবিরোধের প্রেক্ষিতে হু ডিজি পিএইচইআইসি ঘোষণা সংক্রান্ত পরামর্শের জন্য ২০২০ সালের জানুয়ারি মাসের শেষ দিকে তিন বার ইসি-কে আহ্বান জানান। কিন্তু কমিটির তরফে এই ঘোষণাকে ‘অত্যন্ত দ্রুত’ বা ‘সময়ের আগে’ বলে দাবি করা হয়। এবং এ-ও বলা হয় যে, ‘অন্য দেশগুলিতে সংক্রমণের ঘটনা সীমিত।’

ভারত-সহ একাধিক দেশ হু-এর অভ্যন্তরে দীর্ঘদিন যাবৎ বিলম্বিত সংস্কারের পক্ষে সওয়াল তুলেছে এবং একই সঙ্গে অতিমারি প্রতিরোধ, প্রস্তুতি এবং প্রতিক্রিয়ার সশক্তিকরণের জন্য একটি নতুন আন্তর্জাতিক চুক্তি নিয়ে আলাপ-আলোচনা চালাতে ২০২১ সালে স্থাপিত আন্তর্সরকারি সংগঠনের সূচনাকে বিশ্ব ব্যবস্থার বিবর্তনে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ বলে মনে করা হচ্ছে। অতীতে পিএইচইআইসি-র ঘোষণা বিতর্কে পরিপূর্ণ থেকেছে এবং বিভিন্ন অংশীদাররা হু-কে কখনও তাড়াহুড়ো, কখনও বা বিলম্ব করার জন্য দোষারোপ করেছে। কোভিড-১৯-এর সময় সেটিকে হু দ্বারা পিএইচইআইসি রূপে ঘোষণা করার দ্রুত সিদ্ধান্তের বাস্তবায়নে আইএইচআর ব্যর্থ হয়। ফলে অতিমারি সংক্রান্ত যথার্থ পদক্ষেপ গ্রহণে দেরি হয়। অপ্রতুল প্রতিবেদন এবং বিশেষজ্ঞদের মতবিরোধের প্রেক্ষিতে হু ডিজি পিএইচইআইসি ঘোষণা সংক্রান্ত পরামর্শের জন্য ২০২০ সালের জানুয়ারি মাসের শেষ দিকে তিন বার ইসি-কে আহ্বান জানান। কিন্তু কমিটির তরফে এই ঘোষণাকে ‘অত্যন্ত দ্রুত’ বা ‘সময়ের আগে’ বলে দাবি করা হয়। এবং এ-ও বলা হয় যে, ‘অন্য দেশগুলিতে সংক্রমণের ঘটনা সীমিত।’ এই ঘটনা এমন এক ব্যবস্থা গড়ে তোলার প্রয়োজনীয়তাকেই দর্শায় যেটি এক পূর্ণকল্পিত পরিকাঠামোর মধ্যে বিদ্যমান আদর্শ কর্তৃপক্ষের পুনর্গঠন করবে, যা বিশ্ব স্বাস্থ্য পরিবেশের উপর সম্প্রদায়গুলির তাৎপর্যপূর্ণ প্রভাবকে স্বীকৃতি দেবে।

২০২২ সালের ২৪-২৯ জানুয়ারির মধ্যে আয়োজিত এক্সিকিউটিভ বোর্ডের (ইবি) ১৫০তম অধিবেশনে হু ডিজি ভবিষ্যৎ অতিমারির বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ও পদক্ষেপ গ্রহণের নিরিখে পাঁচটি অগ্রাধিকার ক্ষেত্রের উপরে জোর দেন, যেগুলি বৈশ্বিক মনোযোগের দাবি রাখে। এই পাঁচটি অগ্রাধিকার হল-

(১) স্বাস্থ্য ও সুস্থতার প্রচার চালানো এবং রোগের মূল কারণ নির্ধারণ করে রোগ প্রতিরোধ করার মতো অব্যবহিত বাঁকবদলের জন্য দেশগুলিকে সহায়তা জোগানো

(২) সর্বজনীন স্বাস্থ্য পরিষেবার ভিত্তিস্বরূপ প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরিষেবার লক্ষ্যে বিদ্যমান স্বাস্থ্য ব্যবস্থার এক আমূল পুনর্বিন্যাসকে সহায়তা জোগানো

(৩) অতিমারি ও মহামারি প্রস্তুতি এবং প্রতিক্রিয়া সংক্রান্ত ব্যবস্থাগুলির অবিলম্বে সশক্তিকরণ

(৪) অন্য অগ্রাধিকারগুলির গুরুত্বপূর্ণ সোপান স্বরূপ বিজ্ঞান, গবেষণা উদ্ভাবন, তথ্য এবং ডিজিটাল প্রযুক্তিগুলির শক্তিকে কাজে লাগানো

(৫) অবিলম্বে হু-এর সশক্তিকরণ।

যদিও মাঙ্কিপক্স, কোভিড-১৯ এবং পূর্ববর্তী পিএইচইআইসি-গুলিতে সদস্য দেশগুলির সঙ্গে হু আইএইচআর-এর করা সুপারিশগুলির সমন্বয়ের অভাব লক্ষ করা গিয়েছে। এর একটি কারণ হল সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে সকল অঞ্চলের দেশগুলির অংশগ্রহণ বা প্রতিনিধিত্বের অপ্রতুলতা। সংশ্লিষ্ট পরিপ্রেক্ষিতে ইসি, ডিজি, ইবি এবং ওয়ার্ল্ড হেলথ অ্যাসেম্বলির (ডব্লিউএইচএ) সদস্যদের মধ্যে সমন্বয় সুনিশ্চিত করার জন্য গভর্নমেন্ট অফ অস্ট্রিয়া একটি স্ট্যান্ডিং কমিটি অন প্যান্ডেমিক অ্যান্ড ইমার্জেন্সি প্রিপেয়ার্ডনেস অ্যান্ড রেসপন্স-এর (এসসিপিপিআর) প্রস্তাব পেশ করেছে। এই প্রতিবেদনে একটি অতিমারির সময়ে এসসিপিপিআর-এর মতো ব্যবস্থার প্রাসঙ্গিকতার দিকটি তুলে ধরা হয়েছে। এমনকি এসসিপিপিআর-এর মতো ব্যবস্থাগুলি মাঙ্কিপক্স মহামারির মতো বিদ্যমান পিএইচইআইসি-এর ক্ষেত্রে সমান কার্যকর।

দ্বিতীয় অধিবেশনের সময়ে হু ডিজি তাঁর ভেটো প্রদানের ক্ষমতাকে ব্যবহার করে মাঙ্কিপক্সকে একটি পিএইচইআইসি ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত নেন। এই সিদ্ধান্ত কয়েকজন সদস্য দ্বারা সমর্থিত হলেও অন্যান্য ইসি সদস্য দেশ হু ডিজি এবং ইসি-র মধ্যে সমন্বয়ের অভাব দর্শিয়ে এটির বিরোধিতা করে।

মাঙ্কিপক্সকে একটি পিএইচইআইসি হিসেবে ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রেক্ষিতে হু ডিজি দু’টি অধিবেশনের আয়োজন করেন। প্রথম অধিবেশনে কোনও ঐকমত্যে পৌঁছনো যায়নি। যদিও দ্বিতীয় অধিবেশনের সময়ে হু ডিজি তাঁর ভেটো প্রদানের ক্ষমতাকে ব্যবহার করে মাঙ্কিপক্সকে একটি পিএইচইআইসি ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত নেন। এই সিদ্ধান্ত কয়েকজন সদস্য দ্বারা সমর্থিত হলেও অন্যান্য ইসি সদস্য দেশ হু ডিজি এবং ইসি-র মধ্যে সমন্বয়ের অভাব দর্শিয়ে এটির বিরোধিতা করে। এসসিপিপিআর-এর মতো একটি ব্যবস্থা আন্তঃসমন্বয় এবং স্বচ্ছতা সুনিশ্চিত করার পাশাপাশি সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে দেশগুলি্র সক্রিয় অংশগ্রহণের জন্য এক কার্যকর পদক্ষেপ হতে পারে। নিম্নলিখিত অনুচ্ছেদগুলিতে এসসিপিপিআর সম্পর্কে সদস্য দেশগুলির মনোভাব, দৃষ্টিভঙ্গির মিল ও অমিল এবং প্রমাণভিত্তিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে কী ভাবে এসসিপিপিআর গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে, সে বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

এসসিপিপিআর-এর রূপরেখা

এসসিপিপিআর-এর সুযোগ থাকবে অতিমারি এবং তার জন্য আপৎকালীন প্রস্তুতি ও প্রতিক্রিয়া প্রস্তাব সংক্রান্ত নির্দেশিকা প্রদান করার। এ ছাড়াও পিএইচইআইসি-এর সময়ে ডিজি-কে সাময়িক পরামর্শ বিবেচনা করার ক্ষেত্রে এবং ইবি ও ডব্লিউএইচএ-কে পিএইচইআইসি-এর ঘোষণা সংক্রান্ত নীতি নির্ধারণের কাজে সাহায্য  করবে। এসসিপিপিআর হু-এর সেক্রেটারিয়েট এবং বিশেষজ্ঞ কমিটিগুলি দ্বারা প্রদত্ত বিজ্ঞানসম্মত উপদেশ (প্রমাণভিত্তিক নীতি নির্ধারণ) এবং সদস্য দেশগুলিতে বহাল নীতিগুলির (প্রমাণ অবগত নীতি নির্ধারণ) মাঝে ব্যবধান দূর করতে সক্ষম, আর একই সঙ্গে ডিজি-কে পথ প্রদর্শনের ক্ষেত্রে সদস্য দেশগুলির ভূমিকাকেও শক্তিশালী করবে। অতিমারির সময়ে এসসিপিপিআর আইএইচআর-এর আপৎকালীন কমিটি এবং ইবি-এর মধ্যে সেতুবন্ধনের কাজ করতে পারে। বর্তমান ব্যবস্থায় ইসি এবং ইবি সদস্য দেশগুলির মধ্যে কোনও প্রত্যক্ষ সংযোগ নেই। যদিও সদস্য দেশগুলির মধ্যে এসসিপিপিআর-এর সুযোগ ও উদ্দেশ্য সম্পর্কে মতপার্থক্য লক্ষ করা গিয়েছে।

অধিকাংশ সদস্য দেশই ইবি অধিবেশন চলাকালীন খানিকটা অনিচ্ছা সত্ত্বেও এসসিপিপিআর স্থাপন করার অস্ট্রিয়া সরকারের প্রস্তাবে সম্মতি জানায়। যেমন কয়েকটি সদস্য দেশ কাঠামো, কার্যকারিতা এবং টার্মস অব রেফারেন্স (টিওআর) প্রসঙ্গে স্বচ্ছতার ঘাটতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে; তাইল্যান্ড স্বচ্ছ, অসদৃশ, ফলাফলভিত্তিক এবং সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য হওয়ার উপরে জোর দিয়েছে; স্পেন ও হাইতি কোনও নির্দিষ্ট দাবি ছাড়াই এসসিপিপিআর-এর সূচনাকে স্বাগত জানিয়েছে। অস্ট্রিয়া সরকার সদস্য দেশগুলির দ্বারা উল্লিখিত উদ্বেগগুলিকে গুরুত্ব দিয়ে এ কথা জানিয়েছে যে, স্বচ্ছতা সুনিশ্চিত করতে টিওআর নিয়ে আরও আলোচনা এবং পুনর্বিবেচনা করা হবে।

অস্ট্রিয়া সরকার সদস্য দেশগুলির দ্বারা উল্লিখিত উদ্বেগগুলিকে গুরুত্ব দিয়ে এ কথা জানিয়েছে যে, স্বচ্ছতা সুনিশ্চিত করতে টিওআর নিয়ে আরও আলোচনা এবং পুনর্বিবেচনা করা হবে।

এর পাশাপাশি, মালয়েশিয়া প্রস্তাবে সমর্থন জানালেও প্রস্তাবিত সাব কমিটি এবং আইএইচআর-এর আওতাভুক্ত বিদ্যমান কমিটিগুলির মধ্যে সংঘাতের সম্ভাবনা সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। এ ছাড়া ঘানা ইবি সদস্যদের দ্বারা গৃহীত সিদ্ধান্ত এড়িয়ে যাওয়া নিয়েও দুশ্চিন্তা প্রকাশ করেছে। (সারণি ১)

সারণি ১: সদস্য দেশগুলির এসসিপিপিআর সংক্রান্ত মতামত

দেশ সমর্থন / উদ্বেগ দেশ সমর্থন / উদ্বেগ
ই ইউ

· একটি নতুন সাব-কমিটি গঠনের ভাবনাকে সমর্থন করা

· এ হেন সাব-কমিটির টার্মস অব রেফারেন্স বিষয়ে বদ্ধপরিকর হওয়া

· সুপারিশ ও তার বাস্তবায়নের মাঝের ব্যবধান কমিয়ে আনা

· এই সাব-কমিটির গঠনকে হু-এর প্রশাসনের একটি বৃহত্তর আঙ্গিকে সমন্বিত করা

স্পেন · অন্যান্য সংস্থা ও প্রক্রিয়া এবং সংগঠনে ইতিমধ্যে বিদ্যমান নানা সংস্থা ও উপায়· গুলির সঙ্গে সাযুজ্য রেখে হু-এর প্রশা· নের সশক্তিকরণের লক্ষ্যে গৃহীত উদ্যোগের অংশ রূপে এটিকে সমর্থন জোগায় স্পেন
ভারত

· ভারত নীতিগত ভাবে অস্ট্রিয়ার প্রস্তাবকে সমর্থন জানায়

· ভারত মনে করে, এমনটা করার জন্য সদস্য দেশগুলির সামগ্রিক মতামত গ্রহণ করা জরুরি। ইবি-র সিদ্ধান্ত গ্রহণের আগে এটির কার্যকারিতা ও টার্মস অব রেফারেন্স খতিয়ে দেখা

তাইল্যান্ড

· এসসিপিপিআর প্রস্তাবনাকে সমর্থন করে

· এটির পরিকাঠামো এবং কার্যকারিতার নিরিখে ঐকমত্য গড়ে তোলার জন্য দীর্ঘমেয়াদি আলোচনার সুপারিশ করে

· এই কমিটির স্বচ্ছ হওয়ার পাশাপাশি প্রতিলিপিহীন, ফলাফল-কেন্দ্রিক এবং সর্বজনীন গ্রহণযোগ্যতাকে সুনিশ্চিত করে

ইন্দোনেশিয়া

· স্বাস্থ্য সংক্রান্ত আপৎকালীন পরিস্থিতিতে একটি স্ট্যান্ডিং কমিটি গঠনের প্রস্তাবটিকে খতিয়ে দেখতে ইচ্ছুক

· কর্মপদ্ধতির ধরন সম্পর্কে বিশদ আলোচনার প্রয়োজন

· অন্তর্ভুক্তিমূলক স্বচ্ছ এবং সময়োচিত সিদ্ধান্ত গ্রহণের নিরিখে তথ্য গ্রহণের ক্ষেত্রে সদস্য দেশগুলির জন্য পুনরাবৃত্তি না ঘটানো

প্যারাগুয়ে

· এসসিপিপিআর প্রস্তাবনাকে সমর্থন করে

· টার্মস অব রেফারেন্স নিয়ে আলোচনা চালানোর প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করে

· এসসিপিপিআর-এর মূল্য সংযোজনের স্বচ্ছতার প্রয়োজনীয়তার কথা বলে

কেনিয়া

· কেনিয়া এর বিপক্ষে মতদান করেছে। এবং কোনও সাব-কমিটির নির্মাণ সংক্রান্ত আলোচনা থেকে বিরত থেকেছে।

· টার্মস অব রেফারেন্স-এর সম্পর্কে বদ্ধপরিকর হতে হবে এবং সকল দেশ দ্বারা সম্মত হতে হবে

উরুগুয়ে · এক্সিকিউটিভ বোর্ডের সশক্তিকরণ সংক্রান্ত পদগুলি সম্পর্কে বিতর্ক এবং অধিকতর স্বচ্ছতার জন্য অপেক্ষা করার পাশাপাশি উরুগুয়ে অতিমারির বিরুদ্ধে বৈশ্বিক প্রতিক্রিয়াকে সুসমন্বিত করার ক্ষেত্রে এটির উপযোগিতাগুলির কথা তুলে ধরে
মালয়েশিয়া

· প্রস্তাবিত সাব-কমিটি এবং আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য বিধির (আইএইচআর) অধীনে একাধিক সাব-কমিটির মধ্যে সম্পর্কের স্বচ্ছতা অনুধাবন করতে চায় মালয়েশিয়া

· মালয়েশিয়া বিজ্ঞানভিত্তিক উপদেশ এবং হু দ্বারা গৃহীত বাস্তব নীতির মধ্যে সংঘাত নিয়ে দুশ্চিন্তা প্রকাশ করেছে

ফিলিপাইন্স

· এসসিপিপিআর প্রস্তাবনাকে সমর্থন করে

· স্বাস্থ্য নিরাপত্তা এবং স্থিতিস্থাপকতার সশক্তিকরণে সদস্য দেশগুলির সমন্বিত জ্ঞানের প্রয়োজনীয়তার কথা বলে

নাউরু · ভবিষ্যৎ অতিমারি এবং স্বাস্থ্য বিপর্যয়ের প্রতিরোধে কার্যকরী প্রতিক্রিয়া গ্রহণের জন্য হু-কে সামগ্রিক ও বৈশ্বিক ভাবে আরও ভাল প্রস্তুতির জন্য একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রক্রিয়ার সূচনা করতে হবে স্লোভাকিয়া

· এসসিপিপিআর প্রস্তাবনাকে সমর্থন করে

· বাস্তবায়নের এবং তীব্র স্বাস্থ্য সঙ্কটের সময়ে বৈশ্বিক প্রশাসনের সশক্তিকরণের কথা বলে

প্যারাগুয়ে

· এসসিপিপিআর প্রস্তাবনাকে সমর্থন জোগায়

· টার্মস অব রেফারেন্স নিয়ে আলোচনা চালানোর প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করে

· এসসিপিপিআর-এর মূল্য সংযোজনে স্বচ্ছতার প্রয়োজনীয়তার কথা বলে

হাইতি · আপৎকালীন প্রস্তুতি এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য প্রত্যুত্তর সংক্রান্ত একটি নতুন ব্যবস্থা গড়ে তোলার ভিত্তি হিসেবে গৃহীত এই উদ্যোগের প্রশংসা করে হাইতি

শ্যানন অ্যান্ড উইভার-এর মডেল অব কমিউনিকেশন-এর পথে হেঁটে এই প্রতিবেদনের লেখকরা এভিডেন্স বেসড ইনফর্মড প্যান্ডেমিক সাপোর্ট সিস্টেম (ইআইপিএসএস) কাঠামোর পক্ষে সওয়াল করেছেন যা সদস্য দেশগুলির মধ্যে এবং হু ডিজি, ইসি, ডব্লিউএইচএ এবং ইবি সদস্যদের মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে তুলতে সাহায্য করবে (চিত্র ১)। এটি প্রতিক্রিয়া লুপ প্রদানের এমন একটি ব্যবস্থা যেটি অগ্রগতির অভিমুখে নির্দেশ করে এবং কার্য পরম্পরা সংশোধনের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে অবিলম্বে মনোযোগ আকর্ষণ করে। স্ট্যান্ডিং কমিটির আওতাভুক্ত সদস্য দেশগুলি স্পষ্টীকরণ এবং সুপারিশের জন্য বিদ্যমান ইবি সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা চালাতে পারে (অনানুষ্ঠানিক ভাবে) যা স্বচ্ছতা বৃদ্ধি করবে এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণকে সহজতর করে তুলবে। আমরা বিশ্বাস করি, এই কাঠামো আইএইচআর-এর ইসি, হু-এর ডিজি, ইবি এবং ডব্লিউএইচএ-র মধ্যে আন্তঃসহযোগকে ঘনিষ্ঠতর করে তোলার মাধ্যমে স্পষ্টতা এবং দক্ষতা বৃদ্ধি করবে। প্রমাণভিত্তিক নীতি নির্ধারণ থেকে শুরু করে প্রমাণ অবগত আইন এবং ফলাফল পর্যন্ত সকল ক্ষেত্রেই ইআইপিএসএস পরিকাঠামো সকল অংশীদারের মধ্যে কার্যকরী আন্তঃসংযোগ সহজতর করে তুলবে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, সদস্য দেশগুলি দ্বারা উপস্থাপিত ইআইপিএসএস-টি আইএইচআর-এর ইসি, হু-এর ডিজি-কে অতিমারি সংক্রান্ত নীতি প্রস্তাবনার পাশাপাশি আপৎকালীন প্রস্তুতি এবং প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনাতেও সাহায্য করবে।

চিত্র ১: এভিডেন্স ইনফর্মড প্যান্ডেমিক সাপোর্ট সিস্টেম (ইআইপিএসএস) ফ্রেমওয়ার্ক

এসসিপিপিআর সঙ্কটের সময়ে আইএইচআর, ডিজি এবং ইবি সদস্যদের সমর্থন জোগানর মাধ্যমে বিশ্বাস ও কার্যকর পারস্পরিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারে। ইআইপিএসএস কাঠামোর মধ্যে এসসিপিপিআর ডব্লিউএইচএ-র নিয়মের সঙ্গে সাযুজ্য রেখেই আলাপ-আলোচনার পথে হাঁটবে এবং এখানে ইবি সদস্যদের এড়িয়ে যাওয়ার কোনও প্রশ্নই নেই। এসসিপিপিআর প্রধানত সীমিত সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী ভূমিকা সম্পন্ন একটি সহায়ক ব্যবস্থা, যার লক্ষ্য হল কার্যকর আন্তঃসমন্বয় এবং যোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপন করা। একই সঙ্গে আইএইচআর-এর সাময়িক সুপারিশগুলি নিয়ে ইবি সদস্য এবং ডব্লিউএইচএ-র মধ্যে ঐকমত্য গড়ে তোলার জন্য সাবকমিটির কাজকে সহজতর করে তোলাও এর অন্যতম দায়িত্ব।

জি২০ সভাপতিত্ব: একটি সুযোগ

সাম্প্রতিক অতীতে প্রতিরোধ, শনাক্তকরণ এবং স্বাস্থ্য বিপর্যয়ের মোকাবিলা সংক্রান্ত উদ্যোগগুলি নিয়ে আলোচনা চালানোর জন্য জি২০ জয়েন্ট ফিন্যান্স অ্যান্ড হেলথ টাস্ক ফোর্স (জেএফএইচটিএফ) একটি বৈশ্বিক মঞ্চ হিসেবে উঠে এসেছে। ভারতের আসন্ন জি২০ সভাপতিত্ব বৈশ্বিক স্বাস্থ্য প্রশাসনকে আরও গণতান্ত্রিক এবং প্রমাণ অবগত বা এভিডেন্স ইনফর্মড করে তোলার সুযোগ করে দেবে। বহুপাক্ষিক সংগঠনগুলিকে ভাল প্রশাসন সংক্রান্ত ভবিষ্যৎ উদ্যোগ গ্রহণের জন্য সংস্কারগুলির সঙ্গে অভিযোজিত হতে হবে। কারণ অভিন্ন বৈজ্ঞানিক অন্তর্দৃষ্টিকে তথ্য-অবগত বৈশ্বিক নীতির গুণমানে রূপান্তরিত করার দায় বর্তায় এই সংস্থাগুলির উপরেই। বিভিন্ন দেশের সরকারের জন্য কোভিড-১৯ অতিমারির মতো বৈশ্বিক স্বাস্থ্য সঙ্কটগুলি থেকে নিজ নিজ দেশের জনসাধারণকে উন্নততর সুরক্ষা প্রদানের একমাত্র উপায় হল কার্যকরী এক সংযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা। এক কথায় বললে, এসসিপিপিআর সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রেক্ষিতে শুধু মাত্র বিষয় বিশেষজ্ঞ নয়, সংশ্লিষ্ট কমিটির দ্বারা সদস্য দেশগুলির প্রতিনিধিত্বের প্রয়োজনীয়তাকেও দর্শায়। আন্তঃসহযোগিতা ও সমন্বয়কে জোরদার করার প্রেক্ষিতে পিএইচইআইসি-র সিদ্ধান্ত গ্রহণের সময়ে ইসি-কে সাহায্য করার জন্য প্রয়োজন প্রমাণ-অবগত সিদ্ধান্ত গ্রহণ। সদস্য দেশগুলির উপস্থিতি তথ্য-অবগত সিদ্ধান্ত গ্রহণে সাহায্য করবে।

মতামত লেখকের নিজস্ব।

The views expressed above belong to the author(s). ORF research and analyses now available on Telegram! Click here to access our curated content — blogs, longforms and interviews.

Authors

Oommen C. Kurian

Oommen C. Kurian

Oommen C. Kurian is Senior Fellow and Head of Health Initiative at ORF. He studies Indias health sector reforms within the broad context of the ...

Read More +
Sanjay Pattanshetty

Sanjay Pattanshetty

Dr. Sanjay Pattanshetty Head of the Department of Global Health Governance and Coordinator of Centre for Health Diplomacy Prasanna School of Public Health Manipal Academy ...

Read More +
Helmut Brand

Helmut Brand

Prof. Dr.Helmut Brand is the founding director of Prasanna School of Public Health Manipal Academy of Higher Education (MAHE) Manipal Karnataka India. He is alsoJean ...

Read More +
Viola Savy Dsouza

Viola Savy Dsouza

Miss. Viola Savy Dsouza is a PhD Scholar at Department of Health Policy Prasanna School of Public Health. She holds a Master of Science degree ...

Read More +