Published on Dec 30, 2023 Updated 0 Hours ago

পরিবহণ ও শিল্পে এলপিজি ব্যবহার স্থিতিশীলতা ও ন্যায্যতার সঙ্গে আপস না–করে  শক্তি সুরক্ষাকে আরও জোরদার করবে

শক্তি ত্রিধা ব্যবস্থাপনা: তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের ভূমিকা

পরিচ্ছন্নতর জ্বালানিতে উত্তরণের জন্য শক্তি ত্রিধার (‌এনার্জি ট্রিলেমা)‌ মধ্যে দিয়ে এগনো প্রয়োজন:‌ শক্তি নিরাপত্তার জন্য চাহিদা আদর্শ স্তরে নিয়ে যাওয়া, স্থায়িত্ব, এবং সাশ্রয়–যোগ্যতা। প্রাকৃতিক গ্যাস একটি সেতু জ্বালানি হিসাবে ভালভাবে প্রচারিত, যা শক্তি ত্রিধার তিনটি সীমাবদ্ধতাই অতিক্রম করতে পারে। তবে তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি) সম্ভবত একটি কম পরিচিত বিকল্প, যদিও তার সক্ষমতা প্রাকৃতিক গ্যাসের তুল্য, এবং সম্ভবত তাকে ছাড়িয়ে যেতে পারে। এলপিজি প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায় যা শক্তি নিরাপত্তা নিশ্চিত করে; এটি টেকসই কারণ এটি আনুষ্ঠানিকভাবে শূন্য বিশ্ব উষ্ণায়ন সম্ভাবনা–সহ একটি পরিচ্ছন্ন জ্বালানি হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ;‌ এবং এলপিজি উৎপাদন ও পরিবহণের সরলতা এটিকে সাশ্রয়ী করে তোলে।

এলপিজি বেসিক

এলপিজি হল
প্রোপেন (সি৩এইচ৮) ও বিউটেন (সি৪এইচ১০) গ্যাসের সংমিশ্রণ, কিন্তু পরিশেষ–ব্যবহারের (‌এন্ড–ইউজ)‌ প্রয়োজনীয়তার উপর নির্ভর করে গ্যাসগুলির সংশ্লিষ্ট অনুপাত পরিবর্তিত হতে পারে। ভারতে এলপিজি ৬০:৪০ অনুপাতে প্রোপেন ও বিউটেন নিয়ে গঠিত, তবে অনুপাতটি পরিশেষ–ব্যবহারের নির্দিষ্টকরণ (‌স্পেসিফিকেশন)‌ এবং বিউটেন ও প্রোপেনের আপেক্ষিক মূল্যের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এলপিজি আয়তন অনুসারে ন্যূনতম ৯০ শতাংশ হল প্রোপেন, এবং ইউরোপে প্রোপেনের অংশ ঋতুর উপর নির্ভর করে ৭০–৮০ শতাংশের মধ্যে থাকে। আবার কোরিয়া গ্রীষ্মের মাসগুলিতে এলপিজিতে ৮৫ শতাংশের বেশি বিউটেন ব্যবহার করে। যে অনুপাতগুলিতে এই উপাদানগুলি বিদ্যমান তা এলপিজির জ্বালা্নি বৈশিষ্ট্যের, যেমন শক্তির উপাদান, বাষ্পের চাপ ও অকটেন সংখ্যার উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে পারে।

এলপিজি–তে একটি পরিমিত বাষ্পের চাপ রয়েছে, যা
উচ্চ শক্তির ঘনত্বের জন্য অপেক্ষাকৃত সস্তা ইস্পাতের আধারে পরিমিত চাপে এলপিজিকে তরল অবস্থায় সংরক্ষণ করার অনুমতি দেয়। তুলনামূলকভাবে, প্রাকৃতিক গ্যাসকে অবশ্যই বায়ুমণ্ডলীয় চাপের সঙ্গে অত্যন্ত সঙ্কুচিত হতে হবে, বা পরিবহণ প্রয়োজনীয়তার জন্য উপযুক্ত শক্তির ঘনত্ব অর্জন করতে  –১৬০°সেলসিয়াসের কম তাপমাত্রায় ক্রায়োজেনিকভাবে তরল আকারে হিমায়িত করতে হবে। সিএনজি (সঙ্কুচিত প্রাকৃতিক গ্যাস) এবং এলএনজি (তরল প্রাকৃতিক গ্যাস)–র ক্ষেত্রে অতিরিক্ত চাপ বা তাপমাত্রার প্রয়োজনীয়তার কারণে আরও ব্যয়বহুল স্টোরেজ ট্যাঙ্কের প্রয়োজন হয়।

এলপিজি–র 
গুণমানের অবনতি না–ঘটিয়েই দীর্ঘ সময়ের জন্য সংরক্ষণ করা যেতে পারে, যা এটিকে গ্রামীণ, শহুরে এবং শিল্প ক্ষেত্রে নানাবিধ ব্যবহারের উপযুক্ত করে তোলে। গ্রামীণ শক্তির প্রেক্ষাপটে শেলফ লাইফ গুরুত্বপূর্ণ, কারণ প্রতিস্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য পরিষেবা প্রায়শই দুষ্প্রাপ্য। এলপিজি অল্প বা বেশি পরিমাণে পরিবহণ করা যেতে পারে, যা এলপিজিকে গৃহস্থালি পর্যায়ে একটি বহুমুখী শক্তির উৎস এবং সেইসঙ্গে শিল্প পর্যায়ে মূল জ্বালানি ও ফিডস্টক করে তোলে। যেহেতু এলপিজি পরিবহণের জন্য পাইপলাইনের বিস্তৃত পরিকাঠামোর প্রয়োজন হয় না, তাই প্রায়শই এটি দ্বীপবাসী বা বেশি উচ্চতার জনসম্প্রদায়গুলির কাছে পৌঁছনোর একমাত্র জ্বালা্নি, এবং জরুরি বা জাতীয় দুর্যোগের সময় বেঁচে থাকার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

যদিও এলপিজি–র একটি নির্দিষ্ট নমুনার মধ্যে বিউটেন ও প্রোপেনের নির্দিষ্ট অনুপাত অনুযায়ী গরম করার মানগুলির মধ্যে কিছুটা প্রাকৃতিক বৈচিত্র্য রয়েছে, তবুও এটির গরম করার তুলনামূলকভাবে উচ্চ মান রয়েছে, যার অর্থ এটি বেশিরভাগ প্রতিযোগী জ্বালানির তুলনায় প্রতি কিলোগ্রামে বেশি শক্তি ধারণ করে। ভরের ভিত্তিতে এলপিজি–তে
সর্বোচ্চ শক্তির উপাদান রয়েছে। তবে আয়তনের ভিত্তিতে এলপিজি–তে পেট্রোল বা ডিজেলের মতো প্রচলিত জ্বালানির তুলনায় শক্তির পরিমাণ কম। এটি এই প্রচলিত জ্বালানি বনাম এলপিজির নিম্ন ঘনত্বের সঙ্গে সম্পর্কিত, যার অর্থ প্রচলিত জ্বালানির মতো একই ফলাফল (‌আউটপুট)‌ অর্জনের জন্য আয়তনের ভিত্তিতে আরও বেশি জ্বালানি প্রয়োজন। এলএনজি ও ইথানলের মতো অন্যান্য বিকল্প জ্বালানির তুলনায় এলপিজি এই ক্ষেত্রে স্বল্প সুবিধা প্রদর্শন করে।

পেট্রোলের তুলনায় এলপিজির তুলনামূলকভাবে
উচ্চ–অকটেন সংখ্যা রয়েছে। সাধারণভাবে, প্রোপেনের তুলনায় হাইড্রোকার্বনের শতকরা হার (যেমন, বিউটেন) বাড়লে অকটেন সংখ্যা হ্রাস পা‌য়, এবং নিম্নক্রমের হাইড্রোকার্বনের ক্ষেত্রে উল্টো, যেমন, মিথেন ও ইথেন। পেট্রোলের তুলনায় এলপিজির উচ্চ–অকটেন সংখ্যা কর্মক্ষমতা ও দক্ষতার সুবিধা দিতে পারে। আরও উন্নত ইগনিশন টাইমিং এবং উচ্চ সঙ্কোচন অনুপাতকে পেট্রোলের তুলনায় প্রি–ইগনিশন বা নক করার কম সম্ভাবনার সঙ্গে ব্যবহার করা যেতে পারে।

এলপিজি হয়
তেল পরিশোধন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে উৎপাদিত হয় বা পেট্রোলিয়াম ও প্রাকৃতিক গ্যাসের পাশাপাশি সরাসরি মাটি থেকে নিষ্কাশন করা হয়। বিশ্বব্যাপী, প্রাকৃতিক গ্যাস প্রক্রিয়াকরণ থেকে প্রায় ৬০ শতাংশ এলপিজি উৎপন্ন হয়। এলপিজি–র উৎপাদন অপরিশোধিত তেলের ধরন, তেল শোধনাগার কতটা পরিশীলিত এবং অন্যান্য তেল পণ্যের তুলনায় প্রোপেন ও বিউটেনের বাজার মূল্যের উপর নির্ভর করে।

যেহেতু এলপিজি একটি উপজাত, তাই এর সরবরাহ প্রাকৃতিক গ্যাস ও অপরিশোধিত তেল পরিশোধনের প্রাপ্যতার উপর নির্ভর করে। বৈশ্বিক স্তরে এলপিজি উৎপাদনে একটি
প্রান্তিক উদ্বৃত্ত রয়েছে, এবং কিছু দেশে এলপিজি বন্ধ হয়ে যায় কারণ এটিকে চাহিদা কেন্দ্রে স্থানান্তরের খরচ পণ্যের মূল্যকে ছাড়িয়ে যাচ্ছিল। প্রাকৃতিক গ্যাস ক্ষেত্র থেকে এলপিজির পরিকল্পিত উৎপাদনের পাশাপাশি উত্তর আমেরিকায় এবং অন্যত্র শেল গ্যাস উৎপাদনের মাধ্যমে চালিত এলপিজি–র সাম্প্রতিক উৎপাদন এইটাই নির্দেশ করে যে এই উদ্বৃত্ত আগামী কয়েক দশকে পর্যাপ্ত এলপিজি সরবরাহ নিশ্চিত করতে থাকবে। ভারতে এলপিজি উপভোগের ৫০ শতাংশেরও বেশি আমদানির মাধ্যমে পূরণ করা হয়।

কার্বন তীব্রতা এবং বিশ্ব উষ্ণায়ন সম্ভাবনা

এলপিজির গঠন (প্রোপেন, বিউটেন এবং অন্যান্য হাইড্রোকার্বনের অনুপাত) এর কার্বনের তীব্রতা নির্ধারণ করে, যা প্রায়শই জ্বালানির
হাইড্রোজেনের সঙ্গে কার্বনের (এইচ:সি) অনুপাত দ্বারা পরিমাপ করা হয়। প্রোপেনে আটটি হাইড্রোজেন পরমাণু এবং তিনটি কার্বন পরমাণু রয়েছে যা প্রায় ২.৬৭ এইচ:সি অনুপাতের সমান। এইচ:সি অনুপাত মিথেন ও ইথেনের মতো নিম্ন–ক্রমের অ্যালকেনগুলির জন্য বৃদ্ধি পায়, এবং বিউটেনের মতো উচ্চ–ক্রমের অ্যালকেনগুলির জন্য হ্রাস পায়। অন্যদিকে, প্রচলিত পরিবহণ জ্বালানি, যেমন, পেট্রোল ও ডিজেল, সাধারণত ১.৭ থেকে ১.৯ পর্যন্ত এইচ:সি অনুপাত প্রদর্শন করে। তাত্ত্বিকভাবে, বিকল্প জীবাশ্ম জ্বালানির তুলনায় এলপিজি–র উচ্চ এইচ:সি অনুপাতের ফলে দহনের সময় কার্বন ডাইঅক্সাইড (সিওটু) এবং ঝুলকালি উৎপাদন কম হয়

কার্বনের তীব্রতা বা এলপিজির সরবরাহকৃত প্রতি ইউনিট শক্তিতে নির্গত কার্বনের পরিমাণও এর
রাসায়নিক গঠন এবং এর ব্যবহারের উপর নির্ভর করে, তবে সাধারণভাবে এটি প্রাকৃতিক গ্যাসের সঙ্গে তুলনীয়। জীবনচক্রের ডিফল্ট কার্বন তীব্রতা এলপিজি–র প্রায় ৭৬ সিওটুই/এমজে (কার্বন–ডাইঅক্সাইড সমতুল্য প্রতি মিলিয়ন জুল), প্রাকৃতিক গ্যাসের জন্য প্রায় ৭৫–৭৮ সিওটুই/এমজে, পেট্রোল ও ডিজেলের জন্য প্রায় ৯০ সিওটুই/এমজে এবং কয়লার ১১২ সিওটুই/এমজে।

 

‘‌কার্বন ফুটপ্রিন্ট’‌ কিলোগ্রাম বা টন সিওটুই জ্বালানিগুলির বৈশ্বিক উষ্ণায়নের সম্ভাবনা (জিডব্লিউপি) বর্ণনা করে। ইউএন ফ্রেমওয়র্ক কনভেনশন অন ক্লাইমেট চেঞ্জ (ইউএনএফসিসিসি)–এর অংশ হিসাবে আন্তঃসরকারি প্যানেল (আইপিসিসি) বায়ুমণ্ডলীয় গ্যাসগুলির জন্য জিডব্লিউপি–গুলিকে সংজ্ঞায়িত ও পুনঃসংজ্ঞায়িত করেছে। আইপিসিসি ১০০ বছরের জিড্বলিউপি সাধারণত জীবনচক্র ও পদচিহ্ন বিশ্লেষণের উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হয় এবং সেগুলি পদচিহ্ন নির্দেশিকাগুলিতে ব্যবহারের জন্য সুপারিশ করা হয়। একটি জ্বালানির জিডব্লিউপি হল ১০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে সিওটু–র সমতুল্য এককের তুলনায় এর বৈশ্বিক উষ্ণায়নের প্রভাব। সংজ্ঞা অনুসারে, সিওটুকে ১-এর একটি জিডব্লিউপি বরাদ্দ করা হয়েছে। আইপিসিসি–র সংজ্ঞা অনুসারে, এলপিজি একটি গ্রিনহাউস গ্যাস নয়, যার অর্থ একে শূন্য জিডব্লিউপি বরাদ্দ করা হয়েছে।


ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন (হু)–এর মতে যেগুলির বার্ষিক গড় বায়ু মানের নির্দেশিকা স্তর (একিউজি) ৫ মাইক্রো গ্রাম প্রতি ঘনমিটার (µg/m3) বা পিএম ২.৫–এর জন্য ৩৫ µg/m3 (‌কণা পদার্থ) এবং সিও (কার্বন মনোক্সাইড)–র জন্য ৭ mg/m3 অর্জন করে সেগুলি হল
পরিচ্ছন্ন জ্বালানি ও প্রযুক্তি। এই মানদণ্ডের অধীনে সৌর/ইলেকট্রিক কুকার, বায়োগ্যাস, প্রাকৃতিক গ্যাস, এলপিজি ও ইথানল–সহ অ্যালকোহল–জ্বালানি ব্যবহার স্বাস্থ্যের জন্য পরিচ্ছন্ন। প্রচুর পরিমাণে পাওয়া জীবাশ্ম জ্বালানি যেমন এলপিজি ও প্রাকৃতিক গ্যাসকে পরিচ্ছন্ন জ্বালানি হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করা স্থিতিশীল উন্নয়নের জন্য রাষ্ট্রপুঞ্জের ২০৩০ অ্যাজেন্ডার স্থিতিশীল উন্নয়ন লক্ষ্য ৭ (এসডিজি ৭) অর্জন করতে সক্ষম করবে। এসডিজি ৭ সকলের জন্য সাশ্রয়ী, নির্ভরযোগ্য ও আধুনিক শক্তি ব্যবহারের সুযোগ করে দেওয়ার আহ্বান জানায়।


‘‌পেট্রোলিয়াম’‌ শব্দের সঙ্গে সংযুক্ত
নেতিবাচক ব্যঞ্জনার কারণে এলপিজি–কে সাধারণত একটি পরিচ্ছন্ন জ্বালানি হিসাবে বিবেচনা করা হয়, তবে এটি একটি বহুমুখী, শক্তিশালী ও পরিচ্ছন্ন শক্তির উৎস, যার বৈশিষ্ট্য হল শক্তি ত্রিধার তিনটি মাত্রাকে উন্নত করতে অবদান রাখতে পারা। ভারতের জন্য, যা শক্তি ত্রিধা সূচকে ৯১টি দেশের মধ্যে ৬৩তম স্থানে রয়েছে, প্রাথমিক রান্নার জ্বালানি হিসাবে এলপিজি দিয়ে অপরিশোধিত বায়োমাস প্রতিস্থাপনের জন্য অব্যাহত নীতিগত চাপ তার র‌্যাঙ্কিং উন্নত করতে অবদান রাখবে। পরিবহণ ‌ও শিল্পে এলপিজি ব্যবহার স্থিতিশীলতা ও ন্যায্যতার সঙ্গে আপস না–করে শক্তি সুরক্ষাকে  আরও জোরালো করবে।



উ‌ৎস: রাইস্ক্যাম্প, রস (‌২০১৭), পরিবহণ জ্বালানি হিসাবে তরল পেট্রোলিয়াম গ্যাসের নির্গমন ও কর্মক্ষমতা: একটি পর্যালোচনা

The views expressed above belong to the author(s). ORF research and analyses now available on Telegram! Click here to access our curated content — blogs, longforms and interviews.

Authors

Vinod Kumar Tomar

Vinod Kumar Tomar

Vinod Kumar, Assistant Manager, Energy and Climate Change Content Development of the Energy News Monitor Energy and Climate Change. Member of the Energy News Monitor production ...

Read More +
Lydia Powell

Lydia Powell

Ms Powell has been with the ORF Centre for Resources Management for over eight years working on policy issues in Energy and Climate Change. Her ...

Read More +
Akhilesh Sati

Akhilesh Sati

Akhilesh Sati is a Programme Manager working under ORFs Energy Initiative for more than fifteen years. With Statistics as academic background his core area of ...

Read More +