Published on Jul 18, 2023 Updated 0 Hours ago
জি২০ অর্থনীতিগুলিতে আর্থিক উন্নয়ন ও নারীর আর্থিক ক্ষমতায়নের জন্য কেয়ার ইকোনমিতে বিনিয়োগ

টাস্ক ফোর্স 6: এসডিজি ত্বরান্বিত করা: ২০৩০ কর্মসূচির জন্য নতুন পথ অন্বেষণ


সারসংক্ষেপ
জি২০ দেশগুলির মধ্যে এই বিষয়ে ‌উল্লেখযোগ্য পার্থক্য থাকলেও বিশ্বব্যাপী অবৈতনিক পরিচর্যা কাজে (ইউসিডব্লিউ) পুরুষদের তুলনায় মহিলারা ৩ গুণ বেশি সময় ব্যয় করেন। যেমন ভারতীয় মহিলারা পুরুষদের তুলনায় যত্নের কাজে প্রায় ৮ গুণ বেশি সময় ব্যয় করেন, কিন্তু কানাডার মহিলারা প্রায় ১.৫ গুণ বেশি সময় ব্যয় করেন। দায়িত্বের এই লিঙ্গভিত্তিক বিভাজন শ্রমবাজারে প্রতিফলিত হয় বাজারের ব্যর্থতায়, যা শিক্ষায় নারীদের প্রবেশাধিকার এবং নারীদের কর্মীবাহিনীতে যোগ দিতে ও টিকে থাকতে বাধা দেয়।

জি২০ অর্থনীতিগুলি ২০২৫ সালের মধ্যে শ্রমবাজারে ২৫ শতাংশ লিঙ্গ ব্যবধান কমাতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আনুষ্ঠানিক শ্রমবাজারে মহিলাদের অংশগ্রহণের সুবিধার্থে ইউসিডব্লিউ সম্পর্কে অবগতি, তা হ্রাস ও পুনর্বণ্টন, এবং যত্নের কাজে লিঙ্গ ব্যবধান মোকাবিলা করা অপরিহার্য। এই নীতিসংক্রান্ত সংক্ষিপ্ত নিবন্ধটিতে জি২০ দেশগুলির জন্য পরিচর্যা অর্থনীতি তৈরিতে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সুপারিশগুলি উপস্থাপন করা হয়েছে, যার মধ্যে আছে পরিচর্যা প্রদানকারীদের ছুটির বিধান, নিয়োগকর্তা ও পরিবারগুলির জন্য আর্থিক প্রণোদনা, শিশুদের যত্ন ও বয়স্ক পরিচর্যা সুবিধার মতো পরিকাঠামোয় বিনিয়োগ, সরকারি–বেসরকারি অংশীদারির (পিপিপি) সুবিধা নেওয়া, এবং কমিউনিটি–ভিত্তিক সংস্থাগুলিতে (সিবিও’‌স) বিনিয়োগে প্রণোদনা।

১। চ্যালেঞ্জ

সারা বিশ্ব জুড়ে নারী ও মেয়েরা গড়ে ৭০ শতাংশ বৈতনিক ও অবৈতনিক পরিচর্যা ঘণ্টা ব্যয় করেন, এবং ৭৫ শতাংশ ইউসিডব্লিউ প্রদান করেন,[১] যা পুরুষদের তুলনায় তিনগুণ বেশি।[২] কোভিড–১৯ অতিমা্রি ইউসিডব্লিউ–তে খরচ, ঝুঁকি ও লিঙ্গবৈষম্য আরও বাড়িয়ে দিয়েছে, এবং মহিলারা ২০২০ সালে অতিরিক্ত ৫১২ বিলিয়ন ঘণ্টা ইউসিডব্লিউ  সম্পাদন করেছেন।

পরিবারের মধ্যে ইউসিডব্লিউ–র লিঙ্গগত বিভাজন নারী ও মেয়েদের শিক্ষা ও কর্মসংস্থানের সুযোগের ব্যবহারে বাধা দেয়, তাঁদের জন্য ন্যায়সঙ্গত ও ন্যায্য মজুরি অস্বীকার করে, এবং অনেককে অর্থনৈতিক ও পরিবেশগত ধাক্কার উচ্চ ঝুঁকি সহ দারিদ্র্য ও নির্ভরতার একটি আন্তঃপ্রজন্মীয় চক্রের মধ্যে ঠেলে দেয়।

ইউসিডব্লিউ–কে মূল্যায়ন না করা হলে, এবং মোট আভ্যন্তর উৎপাদন (জিডিপি)–সহ সাধারণ জাতীয় হিসাব ব্যবস্থায় নারী ও মেয়েদের অর্থনৈতিক অবদানকে সম্পূর্ণরূপে স্বীকৃতি না–দিলে, কাঠামোগত বৈষম্য স্থায়ী হয়। মহিলাদের পরিচর্যার কাজের অবমূল্যায়ন ও অস্বীকৃতির ফলে শ্রমবাজার ব্যর্থ হয়েছে, যা অন্তত চারটি উপায়ে প্রকাশ পেয়েছে:

ক)‌ মহিলারা সময়–দারিদ্র্য অনুভব করেন, অর্থাৎ বেতনের কাজ করা, অবসরযাপন, শিক্ষা ইত্যাদির জন্য তাঁদের হাতে পুরুষ সমকক্ষদের তুলনায় কম সময় থাকে।
খ)‌ মহিলারা তাঁদের শ্রমশক্তিতে অংশগ্রহণের বিকল্পগুলি সীমাবদ্ধ বলে মনে করেন। অর্গানাইজেশন ফর ইকনমিক কো–অপারেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ওইসিডি) (২০১৪)–এর বিভিন্ন দেশভিত্তিক অনুমান দেখায় যে অবৈতনিক শ্রম দায়বদ্ধতার দুই ঘণ্টা বৃদ্ধি মহিলাদের শ্রমশক্তিতে অংশগ্রহণের হার (এফএলএফপিআর) ১০ শতাংশ–পয়েন্ট হ্রাস করে।[৪]
গ)‌ মহিলারা মাতৃত্বের জরিমানা ভোগ করেন, আর পিতারা মজুরি প্রিমিয়াম ভোগ করেন। বেশিরভাগ জি২০ অর্থনীতিতে মায়েরা সন্তানহীন মহিলাদের তুলনায় কম উপার্জন করেন। জরিমানা আর্জেন্টিনা ও চিনে ১০ শতাংশ এবং তুরস্কে ৩০ শতাংশ পর্যন্ত হতে পারে।[৫] বিপরীতভাবে, সন্তানসহ পুরুষরা সন্তানহীন পুরুষদের তুলনায় বেশি উপার্জন করেন।
ঘ)‌ এমনকি পরিবারের বাইরে পরিষেবা প্রদানের ক্ষেত্রেও পরিচর্যার কাজকে অবমূল্যায়ন করা হয়। ফলস্বরূপ, পরিচর্যার কাজগুলিতে কম বেতন দেওয়া হয় এবং প্রায়শই তা অনানুষ্ঠানিক হয়।

জি২০ জুড়ে ইউসিডব্লিউ–তে লিঙ্গ ব্যবধানের মূল্যায়ন (চিত্র ১) বিভিন্ন দেশে উল্লেখযোগ্য পার্থক্য প্রকাশ করে, এবং দেখা যায় উদীয়মান অর্থনীতিতে উচ্চতর লিঙ্গ ব্যবধান রয়েছে। যেমন, পুরুষ ও মহিলাদের দ্বারা পরিচালিত ইউসিডব্লিউ–র মধ্যে অসমতা ভারতে ৮.৪ গুণ এবং কানাডায় ১.৫ গুণ। এর একটি কারণ হল পরিচর্যার পরিকাঠামো ও নীতিগুলিতে বিনিয়োগের উপর একটি স্থিতিশীল মনোযোগ, যার মধ্যে আছে রাষ্ট্রের পৃষ্ঠপোষকতাপুষ্ট সন্তানের জন্মপরবর্তী পিতামাতার ছুটি এবং উন্নত অর্থনীতিতে ভর্তুকিযুক্ত পরিচর্যা। উদীয়মান অর্থনীতিগুলির মধ্যে লাতিন আমেরিকার দেশগুলি ব্যাপক পরিচর্যার প্রকল্প তৈরির প্রস্তাব নিয়ে কাজ করছে৷ [৬]

চিত্র ১: জি২০ দেশগুলিতে ইউসিডব্লিউ–তে লিঙ্গ ব্যবধান

দ্রষ্টব্য: ইন্দোনেশিয়া ‌ও সৌদি আরবের জন্য ডেটা এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের জন্য আলাদা ডেটা উপলব্ধ নেই৷ ব্রাজিল ও রাশিয়ার জন্য ডেটা বিশ্ব ব্যাঙ্ক থেকে নেওয়া হয়েছে এবং ভারতের জন্য ডেটা ভারত সরকারের সময়–ব্যবহার সমীক্ষা ২০১৯ থেকে নেওয়া হয়েছে।
সূত্র: আইএলও (২০১৮)[৭]

২। জি২০–র ভূমিকা

ইউসিডাবলু–তে লিঙ্গগত ব্যবধানের ফলে মহিলাদের জন্য সময়–দারিদ্র্য বৃদ্ধি পায়, যা শেষ পর্যন্ত জি২০ অর্থনীতিতে নিম্ন এফএলএফপিআর–এর দিকে পরিচালিত করে। বিশ্বব্যাপী, শিশু বা পরিবারের সদস্যদের জন্য সাশ্রয়ী মূল্যের পরিচর্যার অভাব উন্নয়নশীল দেশগুলিতে শ্রমবাজারে মহিলাদের অংশগ্রহণের সম্ভাবনা প্রায় ৫ শতাংশ পয়েন্ট এবং উন্নত দেশে ৮ শতাংশ পয়েন্ট হ্রাস করে।[৮] ইন্দোনেশিয়ায় প্রায় ৪০ শতাংশ কর্মজীবী নারী বিবাহ বা সন্তান প্রসবের পর কাজ করেন না, এবং তাঁদের অর্ধেক এর জন্য পরিবার–সম্পর্কিত কারণ উল্লেখ করেন।[৯] ভারতের গুণগত অধ্যয়নগুলি প্রকাশ করে যে ইউসিডব্লিউ–র বোঝা মহিলাদের কাজ করার ক্ষমতাকে বাধা দেয়।[১০]

জি২০ দেশগুলিতে শ্রমশক্তিতে নারীর অংশগ্রহণ বাড়াতে পারলে তা আর্থ–সামাজিক উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করবে। বিশ্ব ব্যাঙ্কের জেন্ডার এমপ্লয়মেন্ট গ্যাপ ইনডেক্স (জিইজিআই) অনুসারে, লিঙ্গ কর্মসংস্থানের ব্যবধান বন্ধ হলে দেশগুলি তাদের জিডিপি ২০ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি করতে পারে।[১১]

পরিচর্যার পরিকাঠামো ও পরিষেবাগুলিতে বিনিয়োগ হল ইউসিডব্লিউ–তে লিঙ্গ ব্যবধান ভারসাম্য আনার উপকরণ, এবং তা অর্থনৈতিক বৃদ্ধি ও কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে পারে, বিশেষ করে মহিলাদের জন্য। ২০১৭ সালে ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড ইউনিয়ন কনফেডারেশন (আইটিইউসি) হিসাব করেছে যে স্বাস্থ্য ও পরিচর্যা খাতে জিডিপির ২ শতাংশের বিনিয়োগ ১.২ শতাংশ থেকে ৩.২ শতাংশ পর্যন্ত সামগ্রিক কর্মসংস্থান বৃদ্ধি করবে, যা চিনে প্রায় ২৪ মিলিয়ন, ভারতে ১১ মিলিয়ন, ইন্দোনেশিয়ায় ২.৮ মিলিয়ন, ব্রাজিলে ৪.২ মিলিয়ন নতুন চাকরির সুযোগ এনে দেবে, কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকায় মাত্র ৪০০,০০০–এর বেশি।[১২]

ইন্টারন্যাশনাল লেবার অর্গানাইজেশন (আইএলও)–এর ২০২২ সালের একটি সমীক্ষা হিসাব করে দেখেছে যে সর্বজনীন শিশু পরিচর্যা ও দীর্ঘমেয়াদি পরিচর্যা  পরিষেবাগুলিতে বিনিয়োগ ২০৩৫ সালের মধ্যে ২৯৯ মিলিয়ন চাকরি তৈরি করতে পারে, যার মধ্যে ৭৮ শতাংশ মহিলারা পাবেন বলে আশা করা হচ্ছে৷[১৩] সমীক্ষায় দেখা গেছে যে সর্বজনীন শিশু যত্ন, সবেতন শিশু যত্ন ছুটি, বুকের দুধ খাওয়ানোর জন্য বিরতি, এবং দীর্ঘমেয়াদি পরিচর্যা পরিষেবা চালু করা কর্মসংস্থানের বৈশ্বিক লিঙ্গ ব্যবধানকে প্রায় ৭.৫ শতাংশ পয়েন্ট কমিয়ে দেবে, এবং দেশের এক–তৃতীয়াংশের মধ্যে এই ব্যবধান প্রায় সম্পূর্ণভাবে ঘুচিয়ে দেবে। তা ছাড়া, আফ্রিকার অর্থনীতিতে বৃহত্তর বৃদ্ধির সঙ্গে জিডিপি ৩.৬ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে, কারণ কর্মসংস্থানের ফলে কর রাজস্ব বৃদ্ধি পাবে, আর তার পরিণামে পরিচর্যা নীতি প্যাকেজের মোট অর্থায়নের  প্রয়োজন হ্রাস পাবে।

বিশ্বের জনসংখ্যার ৬৬ শতাংশ মানুষ যেখানে বাস করেন এবং যারা বৈশ্বিক জিডিপির ~ ৮৫ শতাংশ অবদান রাখে, সেই জি২০ দেশগুলি উন্নত ও উদীয়মান অর্থনীতির মিশ্রণ গঠন করে। তারা পরিচর্যা অর্থনীতির চ্যালেঞ্জগুলির মোকাবিলা এবং সমাধানগুলি তৈরি করার জন্য ভাল জায়গায় আছে, যা জি২০–র মধ্যে এবং এর বাইরে উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে পারে।[১৪]

২০১৪ সালে ব্রিসবেনে জি২০ নেতারা ২০২৫ সালের মধ্যে শ্রমশক্তির অংশগ্রহণে লিঙ্গব্যবধান ২৫ শতাংশ হ্রাস করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন।[১৫] ২০২২ সালে ডব্লিউ২০ ও ইন্দোনেশিয়ায় অনুষ্ঠিত নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে দ্বিতীয় জি২০ মন্ত্রীপর্যায়ের সম্মেলনে পরিচর্যা অর্থনীতির চ্যালেঞ্জগুলি অগ্রাধিকার ক্ষেত্র হিসাবে দেখা হয়েছিল, এবং পরিচর্যার কাজকে পুরুষ ও মহিলাদের মধ্যে একটি ভাগ–করা দায়িত্ব এবং সেইসাথে দেশ ও সমাজের দায়িত্ব হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল। এই লক্ষ্যগুলি বাস্তবায়নের জন্য ২০২২ সালের নভেম্বরে জি২০ নেতাদের বালি ঘোষণা বেতনভুক ও ইউসিডব্লিউ –র মধ্যেকার অসম বণ্টন মোকাবিলা করার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে, এবং পরিচর্যার কাজকে অর্থনৈতিক বৃদ্ধির জন্য অগ্রাধিকার হিসাবে তুলে ধরা হয়েছে। [১৬]

আরও এগিয়ে জি২০ দেশগুলি স্থিতিস্থাপক পরিচর্যা ব্যবস্থাকে শক্তিশালী ও সম্প্রসারিত করে এবং রাজনৈতিক ইচ্ছা ও আন্তর্জাতিক সমন্বয় গড়ে তোলার জন্য কার্যকর নীতির উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে মহিলাদের উপর বিদ্যমান পরিচর্যার বোঝা কমাতে পারে।

৩। জি২০–র জন্য সুপারিশ

জি২০ অর্থনীতিগুলির ‘‌একটি গুরুত্বপূর্ণ সামাজিক মঙ্গল ও একটি অপরিহার্য মানবাধিকার’‌ হিসাবে পরিচর্যা নিশ্চিত করার বিষয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হওয়া উচিত।[১৭] পিপিপি–গুলি কার্যকর পরিচর্যা পরিষেবা সরবরাহের মডেলগুলির বিকাশে একটি মূল উপকরণ হতে পারে। সরকারি ও বেসরকারি ক্ষেত্র পরিচর্যা অর্থনীতিতে সমান অংশীদার হতে পারে। পরিচর্যা অর্থনীতিতে তিন ধরনের হস্তক্ষেপে পরিপূরক ভূমিকা পালন করতে পারে (চিত্র ২):

১। ছুটি ও কল্যাণ নীতি
২। পরিচর্যা সেবার জন্য ভর্তুকি
৩। পরিকাঠামো বিনিয়োগ

চিত্র ২: পরিচর্যা অর্থনৈতিক নীতি তিন ধরনের

দ্রষ্টব্য: এই পরিসংখ্যানটি তিন ধরনের ‌পরিচর্যা অর্থনীতি হস্তক্ষেপের প্রতিটিতে সরকার বনাম ব্যক্তিগত অবদান দেখায়।
সূত্র: লেখকের নিজস্ব

চিত্র ৪: পরিচর্যা অর্থনীতি হস্তক্ষেপের উপযোগী কাঠামো


দ্রষ্টব্য: এই চিত্রটি তিনটি ধরনের যত্ন অর্থনীতি হস্তক্ষেপের প্রতিটির উপ–শ্রেণি  দেখায়।
সূত্র: লেখকের বিশ্লেষণ

ছুটি সংক্রান্ত নীতি
অধ্যয়নগুলি পরামর্শ দেয় যে নতুন পিতামাতাকে ‌সবেতন ছুটি দেওয়া শিশুদের সুস্থ বিকাশে অবদান রাখে, মাতৃস্বাস্থ্যের উন্নতি করে, এবং পরিবারের অর্থনৈতিক নিরাপত্তা বাড়ায়।[১৮] উদাহরণস্বরূপ, ৩০টি ওইসিডি দেশে শ্রমবাজারের ফলাফলের উপর বেতনের অভিভাবকীয় ছুটির প্রভাব নিয়ে একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে সবেতন ছুটির মেয়াদ বাড়ানোর ফলে মহিলা–পুরুষ কাজের সময়–অনুপাত বৃদ্ধি পায় (প্রতি সপ্তাহে ০.৫–১.৮ ঘণ্টা)।[১৯]

  • মাতৃত্বকালীন ছুটি: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ব্যতীত জি২০–র সমস্ত দেশে প্রদত্ত মাতৃত্বকালীন ছুটি বাধ্যতামূলক করার আইনি বিধান রয়েছে। সাধারণত, কিছু ব্যতিক্রম সহ মাতৃত্বকালীন ছুটি ১০ থেকে ২০ সপ্তাহ মেয়াদের হয়।
  • পিতৃত্বকালীন ছুটি: বেশিরভাগ জি২০ অর্থনীতিতে (ভারত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, চিন,[খ] কানাডা,[গ] রাশিয়া ও জাপান ব্যতীত) ২–৩০ দিনের পরিসরে প্রদত্ত পিতৃত্বকালীন ছুটির জন্য বিধিবদ্ধ অধিকার রয়েছে ৷

ভাগ করা পিতামাতার ছুটি: জি২০ দেশগুলির ৫০ শতাংশেরও কম দেশে এমন আইনি বিধান রয়েছে যা তাদের লিঙ্গনির্বিশেষে প্রাথমিক পরিচর্যাদাতাকে পিতামাতার ছুটি ও আংশিকভাবে তহবিল সুবিধা প্রদান করে।

জি২০ দেশগুলি এমন কাঠামোর দিকে অগ্রসর হতে পারে যা শুধুমাত্র দীর্ঘ মাতৃত্বকালীন ছুটির পরিবর্তে লিঙ্গ–সংবেদনশীল পিতামাতার ছুটির ব্যবস্থা করবে (সংক্ষিপ্ত পিতৃত্বকালীন ছুটি সহ)। আদর্শভাবে কিন্তু লিঙ্গ–সংবেদনশীল পিতামাতার ছুটির ব্যবস্থা এমন হওয়া উচিত যা মা ও বাবাকে সমান দৈর্ঘ্যের ছুটি নিতে উৎসাহিত করে ভাগ–করা দায়িত্বের কথা প্রচার করবে। লিঙ্গ–সংবেদনশীল পিতামাতার ছুটি এই স্টিরিওটাইপের শক্তি হ্রাস করতে পারে যেখানে মা’‌কে প্রাথমিক যত্নদাত্রী হিসাবে দেখা হয়। দৈর্ঘ্য প্রতিস্থাপন হার ও ছুটির সময়কাল প্রতিটি দেশের আর্থিক ক্ষমতার উপর নির্ভর করবে।

দেশগুলি শিশু পরিচর্যা খাতে ছুটির খরচ দিতে নিয়োগকর্তা ও কর্মচারীদের অবদান এবং বিমা ও পাবলিক ফান্ডিং–এর সমন্বয় ব্যবহার করতে পারে। যে নীতিগুলি নিখুঁতভাবে নিয়োগকর্তার উপরেই সুবিধা প্রদানের দায়িত্ব চাপিয়ে দেয়, তা যে শ্রমবাজারে মহিলাদের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে তা ভারতের মাতৃত্ব সুবিধা (সংশোধন) আইন ২০১৭ দ্বারা প্রমাণিত।[২০] এইভাবে, জি২০ দেশগুলি পিতামাতার ছুটির জন্য বেসরকারি ক্ষেত্রের সঙ্গে ব্যয় ভাগাভাগির জন্য সমাধান খুঁজতে কাজ করতে পারে।

অতিরিক্তভাবে, দেশগুলির অপ্রাতিষ্ঠানিক কর্মীদের ছুটির কভারেজ বাড়ানোর  বিকল্পগুলিও অন্বেষণ করা উচিত, যেমন পিতামাতার নগদ হস্তান্তরের মাধ্যমে। এটি গ্লোবাল সাউথে বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ, যেখানে অপ্রাতিষ্ঠানিকতার উচ্চ হার প্রায়ই কর্মীদের ঐতিহ্যগত পিতামাতার ছুটির নীতিগুলির সুযোগ সীমিত করে। আইএলও–র (২০২১) নির্দেশিকা অনুসরণ করে দেশগুলি নগদ হস্তান্তরের মাধ্যমে অ–অংশদানমূলক পিতৃত্ব–মাতৃত্ব সুবিধাগুলি নিশ্চিত করতে পারে। কিছু দেশ, যেমন আর্জেন্টিনা, ইউনিভার্সাল প্রেগন্যান্সি অ্যালাউন্সের মাধ্যমে গর্ভবতী মহিলাদের নগদ হস্তান্তর করে, যা মায়েদের প্রতি মাসে একটি ছোট অর্থ প্রদান করে। নগদ হস্তান্তর ও  প্রারম্ভিক শৈশব যত্ন পরিষেবা সহ আর্জেন্টিনার পরিচর্যার নীতিগুলি ০.৭ শতাংশ ও ৫.৩ শতাংশ জিডিপি বৃদ্ধির সাথে একটি শক্তিশালী অর্থনৈতিক প্রভাব ফেলেছে, এবং ২০১৯ সালের একটি সমীক্ষা অনুসারে মোট কর্মসংস্থান ০.৭ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৬.৪ শতাংশে হয়েছে৷[২১] এই নগদ হস্তান্তরগুলি কমপক্ষে ন্যূনতম মজুরির পর্যায়ে উন্নীত করা যেতে পারে, এবং মা ও বাবা উভয়ের জন্য প্রসারিত করা যেতে পারে।

পরিচর্যা সেবার জন্য ভর্তুকি
জি২০–র ক্ষেত্রে পরিচর্যা পরিষেবা পাওয়ার জন্য ভর্তুকিগুলি যে আকার নেয় তা হল পিতামাতার জন্য পৃথক ট্যাক্স ক্রেডিট এবং কর্মচারীদের শিশু যত্ন সুবিধা দিতে ব্যবসাগুলিকে উৎসাহিত করার জন্য কর ছাড়। যেমন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পিতামাতারা সন্তানের বয়সের উপর নির্ভর করে বিভিন্ন ট্যাক্স ক্রেডিট ও ছাড় পেয়ে থাকেন।[২২]

যদিও কর ভর্তুকি উন্নত দেশগুলিতে বেশি প্রচলিত, সেগুলি ধীরে ধীরে উন্নয়নশীল দেশগুলিতেও চালু হচ্ছে। ব্রাজিলে নিয়োগকর্তাদের কাছে বিকল্প রয়েছে দুই মাসের অতিরিক্ত মাতৃত্বকালীন ছুটি দেওয়ার এবং এর জন্য প্রদত্ত অর্থ কর্পোরেট আয়কর থেকে ছাড় হিসাবে পাওয়ার।[২৩] কর ছাড় ও নগদ হস্তান্তরের মাধ্যমে আর্জেন্টিনার থ্রি–পিলার সিস্টেম বেকারত্ব ও অপ্রাতিষ্ঠানিকতার সম্মুখীন পরিবারগুলিকে সমর্থন করে।[২৪]

জি২০ সরকারগুলি সেই নিয়োগকর্তাদের আর্থিক প্রণোদনা দেওয়ার কথা বিবেচনা করতে পারে যাঁরা কর্পোরেট ট্যাক্স ক্রেডিটগুলির মাধ্যমে তাঁদের কর্মীদের মধ্যে যত্নের কাজের দায়িত্ব হ্রাস ও পুনর্বণ্টনকে উৎসাহিত করেন। যেমন, যে নিয়োগকর্তারা স্তন্যপান/স্তন্যপান করানোর ঘর, গর্ভবতী মহিলাদের জন্য পার্কিং সুবিধা, যত্নের কাজের ছুটি, এবং শিশু যত্ন ও বয়স্ক পরিচর্যার জন্য যত্ন পরিষেবা প্রদানকারী নিয়োগের মাধ্যমে কর্মচারীদের সহায়তা প্রদান করেন, তাঁদের করছাড়ের মাধ্যমে পুরস্কৃত করা যেতে পারে। অধিকন্তু, সরকারগুলি পরিচর্যার কাজের জন্য সহায়তা প্রদানকারী ছোট ব্যবসার মালিকদের উচ্চ ছাড় দিতে পারে।

পরিচর্যা পরিকাঠামোতে সরকারি বিনিয়োগ

অনুচ্ছেদ ৩–এ যেমন উল্লেখ করা হয়েছে, পরিচর্যা অর্থনীতির বিনিয়োগগুলি জি২০ অর্থনীতি জুড়ে আর্থ–সামাজিক বৃদ্ধির গুরুত্বপূর্ণ চালক হতে পারে। সরকারগুলি এই আর্থ–সামাজিক উন্নয়নের সুযোগগুলি উপলব্ধি করার জন্য পরিচর্যা পরিকাঠামো ও পরিষেবাগুলিতে বিনিয়োগ করার কথা বিবেচনা করতে পারে।

ক. শিশু যত্ন ও বয়স্কদের যত্ন সুবিধার জন্য ব্যয় বৃদ্ধি

জি২০ দেশগুলিকে, বিশেষ করে উন্নয়নশীল অর্থনীতিগুলিকে, শিশুদের ও বয়স্কদের জন্য উন্নত মানের, সাশ্রয়ী মূল্যের ও সহজে প্রাপ্তিযোগ্য পরিচর্যার সুবিধা প্রসারিত করতে হবে, যার জন্য পরিচর্যা পরিকাঠামোতে এবং বিশেষ করে গ্রামীণ ও সুবিধাবঞ্চিত এলাকায় সরকারি ব্যয় বৃদ্ধির প্রয়োজন।

২০১৮ সালে, জি২০ দেশগুলি নির্বাচিত পরিচর্যা নীতিগুলির জন্য ১ শতাংশ থেকে ৪.১ শতাংশের মধ্যে ব্যয় করছে (চিত্র ৩)। উন্নত দেশগুলির মধ্যে জিডিপি–র শতাংশ হিসাবে বিনিয়োগ ২ শতাংশ থেকে ৪.১ শতাংশের মধ্যে, যেখানে উন্নয়নশীল দেশগুলির ক্ষেত্রে তা ১ শতাংশের কম থেকে ৩.৯ শতাংশের মধ্যে।

চিত্র ৩: জি২০ দেশগুলি জুড়ে জিডিপির শতাংশ হিসাবে পরিচর্যা ব্যয়


সূত্র: আইএলও ডেটা, ২০১৮
দ্রষ্টব্য: ব্যয়ের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত প্রাক–প্রাথমিক শিক্ষা; দীর্ঘমেয়াদি পরিচর্যা পরিষেবা ও সুবিধা; এবং মাতৃত্ব, অক্ষমতা, অসুস্থতা, ও কর্ম ক্ষেত্রে আঘাতজনিত সুবিধা।

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে কানাডা, জার্মানি, চিন ও ব্রিটেনের মতো জি২০ অর্থনীতিগুলি একটি স্থিতিস্থাপক পরিচর্যা বাস্তুতন্ত্র তৈরি করতে পরিচর্যা পরিকাঠামোতে সক্রিয়ভাবে বিনিয়োগ করছে। ইউকে উচ্চ শিশু যত্ন খরচের বাধাগুলি মোকাবিলা করতে যোগ্য কর্মজীবী পিতামাতার জন্য বিনামূল্যে চাইল্ড কেয়ার সম্প্রসারণের লক্ষ্যে ৪.৮৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগের কথা ঘোষণা করেছে।[২৬]  জার্মানি ২০২০ সালে ৫৯০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং ২০২১ সালে ফের অতিরিক্ত ৫৯০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বরাদ্দ করেছিল নতুন শিশু যত্নের সুবিধা তৈরি করতে এবং বিদ্যমানগুলিকে সংস্কার করতে।[২৭]  কানাডায় সাসকাচোয়ান প্রাথমিক শিক্ষা ও শিশু যত্ন কেন্দ্রগুলিকে সমর্থন করার জন্য ৪৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগের কথা ঘোষণা করেছে।[২৮]  চিন তার বয়স্ক পরিচর্যা ব্যবস্থাকে সমর্থন করার জন্য অবসর–সুবিধা নির্মাণের উদ্দেশ্য ৫.১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার  বিনিয়োগের প্রস্তাব করেছে।[২৯] আগামী সময়ে জি২০ জুড়ে উন্নয়নশীল অর্থনীতিগুলির পরিচর্যা অর্থনীতিতে তাদের আর্থিক বিনিয়োগ বাড়ানোর চেষ্টা করা উচিত।

খ. দক্ষতা প্রশিক্ষণ এবং বর্তমান পরিচর্যা কাজের কাঠামো্কে আনুষ্ঠানিক করে তোলা
বিশেষ করে নারী কর্মীদের মধ্যে পরিচর্যার কাজ ও গার্হস্থ্য কাজ উচ্চ মাত্রার অনানুষ্ঠানিকতার দ্বারা চিহ্নিত হয়।[৩০]

পরিচর্যা কর্মীদের জন্য শালীন ও আনুষ্ঠানিক কাজের পরিস্থিতি নিশ্চিত করার জন্য জি২০ সদস্য দেশগুলি সি১৮৯ কনভেনশন অনুমোদন সহ নীতি, আইনি ও নিয়ামক কাঠামো শক্তিশালী করার কথা বিবেচনা করতে পারে।[ঘ]

পরিচর্যা কর্মীদের দক্ষতা, দায়িত্বের সময় ও অভিজ্ঞতার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ কাজের ব্যবস্থা এবং পেমেন্ট ব্যান্ড সহ আরও ভাল সাংগঠনিক কাঠামো তৈরি করার প্রয়োজন আছে। পরিচর্যা অর্থনীতির কর্মীদের জন্য স্কিলিং প্রোগ্রাম তৈরি করা যেতে পারে, এবং কাজের অভিজ্ঞতা ও দক্ষতার প্রশিক্ষণ–ভিত্তিক সার্টিফিকেশন চালু করা যেতে পারে। এর ফলে পরিচর্যা কর্মীদের সিনিয়রিটি ও স্পেশালাইজেশনের স্তর চিহ্নিত করা যাবে এবং জি২০ দেশগুলির মধ্যে পরিচর্যা কর্মীদের কাজের জন্য যাতায়াতের সুবিধা হবে।  ব্রিটেন ও কানাডার মতো উন্নত অর্থনীতিতে তাই করা হচ্ছে। ব্রিটেনে বেসরকারি নিয়োগকর্তারাও পরিচর্যা কর্মীদের এন্ট্রি–লেভেল সার্টিফিকেশন এবং আরও যোগ্যতা অর্জনের জন্য প্রশিক্ষণ প্রদান করেন। কানাডার অন্টারিওতে বৃহত্তর জনসুরক্ষা ও ব্যক্তিগত পরিচর্যা কর্মীদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার জন্য একটি ব্যাপক রেজিস্ট্রি তৈরি করা হয়েছে। রেজিস্ট্রি শুধুমাত্র সেই কর্মীদের নেয় যারা উপযুক্ত এবং নিরাপদ  পরিচর্যা প্রদানের জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হন।[৩১]

গ. সরকারি–বেসরকারি পার্টনারশিপ ব্যবহার করা
স্থিতিশীল ও লিঙ্গ–অন্তর্ভুক্ত অতিমারি–উত্তর পুনরুদ্ধারের জন্য জি২০ দেশগুলি পরিচর্যা পরিষেবা দেওয়া লক্ষ্যে নীতি ও নিয়ন্ত্রক কাঠামো তৈরি করতে পারে, যার মাধ্যমে পিপিপি–গুলিকে কার্যকর করা যাবে এবং সেইসঙ্গে পাইলট ভিত্তিতে গ্রিনফিল্ড/ব্রাউনফিল্ড পরিচর্যা পরিকাঠামোর জন্য চাইল্ড কেয়ার সুবিধা বা বয়স্ক যত্ন সুবিধার ক্ষেত্রে মডেল কনসেশন এগ্রিমেন্ট করা যাবে। এই কাঠামোগুলির ঝুঁকি প্রশমন প্রক্রিয়া ও পরিচর্যা ক্ষেত্রের প্রাসঙ্গিক অর্থায়নের মডেলগুলি সনাক্ত করা উচিত, এবং মূল কর্মক্ষমতা সূচকগুলিকে সংজ্ঞায়িত করা উচিত। পাইলট প্রকল্পগুলিকে অনুসরণ করে এই মডেলগুলির প্রভাব ও কার্যকারিতা মূল্যায়ন করার জন্য পর্যাপ্ত তথ্য পাওয়া যেতে পারে।

ঘ. জনসম্প্রদায়–ভিত্তিক সংস্থা ও সামাজিক উদ্যোগগুলিতে বিনিয়োগকে উৎসাহিত করা
একাধিক জি২০ দেশে স্থানীয় সিবিওগুলিকে, বিশেষ করে অনানুষ্ঠানিক ও গ্রামীণ ক্ষেত্রে, সরাসরি অনুদান দেওয়ার বিধান রয়েছে৷ যেমন, অস্ট্রেলিয়া বয়স্ক পরিচর্যার অনুমোদিত প্রদানকারীদের আর্থিক সহায়তা দিয়ে থাকে।[৩২]

সরকারগুলি উদ্ভাবনী পরিচর্যা সমাধান প্রদানকারী সিবিওগুলিকে সমর্থন করার জন্য গ্রামীণ ও অনুন্নত এলাকায় বিনিয়োগকে অগ্রাধিকার দিতে পারে। জনসম্প্রদায়–চালিত পরিচর্যা পরিষেবার (সিসিসি’‌স) একটি সফল উদাহরণ ভারত থেকে এসেছে, এবং তার জন্য যদি সরকারি তহবিল সরবরাহ করা হয় তবে তা সমাধানটিকে আয়তনে বাড়াতে এবং ছড়িয়ে দিতে পারে। মুম্বইয়ের অনানুষ্ঠানিক বসতিতে নারীদের পরিচালিত একটি সিবিও ‘‌আপনালয়’‌–এর সঙ্গে নিকোর অ্যাসোসিয়েটসের আলোচনা থেকে দেখা যায় সিসিসি কীভাবে নারীর কর্মশক্তির অংশগ্রহণ বাড়িয়েছে এবং অনেক নারীকে কর্মসংস্থানের উৎস দিয়েছে।[৩৩]

বেসরকারি উদ্যোগগুলি তাদের কর্পোরেট সোশ্যাল রেসপন্সিবিলিটি (সিএসআর) বাজেটের অংশ হিসাবে সিবিও–র অর্থায়ন করতে পারে। আনুষ্ঠানিক ক্ষেত্রের উদ্যোগগুলির সঙ্গে অংশীদারিত্বের মাধ্যমে এই সিবিওগুলি কারখানা ও অন্যান্য কাজের জায়গাতেই কর্মীদের পরিচর্যা সুবিধা প্রদান করতে পারে। এই ধরনের সহযোগিতা সিবিওগুলিকে যেমন তাদের ক্রিয়াকলাপ বাড়াতে সাহায্য করে, তেমনই তাদের আর্থিকভাবে কার্যকর সামাজিক উদ্যোগে পরিণত করতে এবং গ্রামীণ ও অনানুষ্ঠানিক ক্ষেত্রে পরিচর্যা পরিষেবাগুলিতে প্রবেশের সুযোগ বাড়াতে সহায়তা করে। একটি উদাহরণ হল গ্রামীণ ভারতে বিদ্যমান অঙ্গনওয়াড়ি (শিশু পরিচর্যা কেন্দ্র) রক্ষণাবেক্ষণের মাধ্যমে শিশুদের পুষ্টির ফলাফল উন্নত করার জন্য টাটা ট্রাস্টের উদ্যোগ। [৩৪]

ঙ. যত্নের কাজ সম্পর্কে লিঙ্গবিচ্ছিন্ন ডেটা সংগ্রহ করা
জি২০ দেশ জুড়ে নিয়মিত জেন্ডার ডিসেগ্রিগেটেড টাইম ইউজ সার্ভে (টিইউএস) অপরিহার্য, যার মধ্যে রয়েছে বিস্তৃত জাতীয় ও স্থানীয় কভারেজ, আরও বর্ণনামূলক প্রশ্ন, এবং বিভিন্ন ধরনের ইউসিডব্লিউ কার্যক্রম সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহের পদ্ধতির উন্নতি।

এ ছাড়া সরকার পরিচর্যা পরিকাঠামোতে আর্থিক বিনিয়োগের পরিমাণ এবং পরিচর্যার চাকরির সংখ্যার হিসাব রাখতে পারে। জি২০ দেশগুলি ডেটা সংগ্রহের জন্য অভিন্ন কাঠামো স্থাপনের লক্ষ্যে একসঙ্গে কাজ করার কথাও বিবেচনা করতে পারে, যা বার্ষিক ভিত্তিতে সক্রিয়ভাবে ট্র্যাক করা যেতে পারে এবং জি–২০ সমর্থিত কর্মশালা ও সম্মেলনে আলোচনা করা যেতে পারে।

এই জাতীয় পদ্ধতির একটি উদাহরণ আছে মেক্সিকোয়, যেখানে গৃহস্থালী উপগ্রহ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে ডেটা সংগ্রহের একটি ব্যবস্থা রয়েছে। এটি বিভিন্ন জনসংখ্যার সময় ব্যবহারের বৈশিষ্ট্যগুলি পরিমাপ করে, এবং তা পরিচর্যা সম্পর্কিত নীতি প্রণয়ন করতে ব্যবহার করা হয়।[৩৫]

৪।  উপসংহার

ইউসিডব্লিউ–র অসামঞ্জস্যপূর্ণ বোঝা বাজারে নারীর কর্মশক্তির অংশগ্রহণকে বাধাগ্রস্ত করেছে। এই বাজারের ব্যর্থতাগুলিকে সংশোধন করার জন্য জি২০ জুড়ে মূল অংশীদারদের একটি সমন্বিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন৷

পরিশিষ্ট ক


এই সংক্ষিপ্ত নিবন্ধে প্রদত্ত সুপারিশগুলির পরিপূরণ করার জন্য এই পরিশিষ্টে কেস স্টাডি হিসাবে পাঁচটি বিশ্বব্যাপী সেরা অনুশীলন উপস্থাপন করা হয়েছে।

কেস স্টাডি ১:‌ ভারতে আপনালয়–এর কমিউনিটি চাইল্ড কেয়ার সেন্টার (সিসিসি’‌স)
দেশ মুম্বই, ভারত
সূচনার বছর ২০১৪
বাস্তবায়নকারী সংস্থা আপনালয়, একটি জনসম্প্রদায়–ভিত্তিক সংস্থা
মডেল সম্পর্কে একটি জনসম্প্রদায়–ভিত্তিক সংস্থা যা মুম্বইয়ের অনানুষ্ঠানিক বসতিগুলিতে শিশু পরিচর্যার পরিকাঠামোকে সমর্থন করে।
মূল বৈশিষ্ট্য আপনালয় আর্থিক স্বাধীনতা ও উদ্যোক্তা হওয়ার ক্ষমতা তৈরি করে মহিলাদের ক্ষমতায়ন করে৷ ২০১৪ সালে অঙ্গনওয়াড়ি পরিষেবাগুলির বিকল্প হিসাবে (যা শহুরে এলাকায় দীর্ঘ সময় ধরে অনুপলব্ধ ছিল) আপনালয় সিসিসি চালু করার জন্য মুম্বইয়ের বেশ কয়েকটি অনানুষ্ঠানিক বসতি জুড়ে মহিলা উদ্যোক্তাদের সমর্থন করেছিল। সামাজিক উদ্যোগের মডেলের উপর ভিত্তি করে সিসিসি সাশ্রয়ী মূল্যের শিশু যত্ন পরিষেবা প্রদান করে, মায়েদের কাজ করতে সক্ষম করে, শিশুদের নিরাপদ রাখে, এবং জনসম্প্রদায়ের মহিলাদের জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করে।
কর্মসূচির প্রভাবI আপনালয়–এর সঙ্গে আলোচনায় জানা গিয়েছে যে সিসিসিগুলি মহিলাদের কর্মশক্তির অংশগ্রহণকে উন্নত করে: ৭৯ শতাংশ ব্যবহারকারী ছিলেন কর্মজীবী মা, এবং অতিমারি চলাকালীন সিসিসি বন্ধ হওয়ার পরে সমস্ত ব্যবহারকারীদের ১৪ শতাংশ শিশু যত্নের বর্ধিত বোঝার কারণে তাঁদের কাজ ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছিলেন৷ উপরন্তু, সিসিসি কর্মসংস্থানের উৎস হিসেবে কাজ করে। ৫০ শতাংশ সিসিসি অপারেটরের জন্য এটি ছিল তাঁদের প্রথম কাজ। এখানে দেখা গিয়েছে যে নারী ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা তাঁদের আয়ের উপর নিয়ন্ত্রণ অর্জন করেছেন এবং এইভাবে গৃহস্থালীর ব্যয়ের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম হয়েছেন।

সূত্র: নিকোর অ্যাসোসিয়েটস [৩৬]

ভারত সরকার সারা দেশে পরিচর্যা সেবা প্রদানের জন্য বেশ কিছু কর্মসূচি ও প্রকল্প চালু করেছে। ভারত সরকারের ন্যাশনাল হেলথ মিশন শহর ও গ্রামীণ উভয় ক্ষেত্রেই ন্যায়সঙ্গত ও সাশ্রয়ী মূল্যের এবং মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবা পরিষেবার সর্বজনীন প্রবেশাধিকারের কথা ভেবে তৈরি হয়েছে।

অ্যাক্রেডিটেড সোশ্যাল হেলথ অ্যাক্টিভিস্ট (আশা) এবং অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী (এডব্লিউডব্লিউ) হলেন সম্মানসূচক স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায়ের স্বাস্থ্যকর্মী, যাঁরা জাতীয় স্বাস্থ্য মিশনের অধীনে কাজ করেন। তাঁদের ভূমিকার মধ্যে রয়েছে মা ও শিশুর যত্ন পরিষেবা প্রদান, টিকাদান এবং পৌষ্টিক যত্নের জন্য সচেতনতা ও গতিশীলতা তৈরি করা। [৩৭]

ইন্টিগ্রেটেড চাইল্ড ডেভেলপমেন্ট সার্ভিসেস (আইসিডিএস) স্কিম ২ অক্টোবর ১৯৭৫–এ চালু হয়েছিল। এটি ভারত সরকারের অন্যতম প্রধান কর্মসূচি, যা শিশু ও নার্সিং মায়েদের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। আইসিডিএস–এর অধীনে, অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রগুলি সমস্ত স্বাস্থ্য, পুষ্টি, এবং প্রাথমিক শিক্ষার উদ্যোগ বাস্তবায়নের কেন্দ্রবিন্দু।

কেস স্টাডি   ২ অস্ট্রেলিয়ার ড্যাড অ্যান্ড পার্টনার পে নীতি
দেশ   অস্ট্রেলিয়া
সূচনাকাল   ২০১৩
বাস্তবায়নকারী সংস্থা অস্ট্রেলিয়ান গভর্নমেন্ট ডিপার্টমেন্ট অফ সোশ্যাল সার্ভিস
মডেল সম্পর্কে  সন্তান লালন–পালনে পিতাদের অংশগ্রহণ বাড়ানোর জন্য, অস্ট্রেলিয়ার অর্থপ্রদত্ত পিতামাতার ছুটির প্রকল্পটি ২০১৩ সালে এমনভাবে পরিবর্তন করা হয়েছিল যাতে দুই সপ্তাহ পর্যন্ত ‘‌ড্যাড অ্যান্ড পার্টনার পে’‌ অন্তর্ভুক্ত করা হয় (বিদ্যমান পিতামাতার ছুটির বেতন ছাড়াও ১৮ সপ্তাহের জন্য প্রাথমিক পরিচর্যাকারী), এবং তা জাতীয় ন্যূনতম মজুরির হারে প্রদান করা হয়।
মূল বৈশিষ্ট্য যোগ্যতা: ড্যাড অ্যান্ড পার্টনার পে–র জন্য যোগ্য হতে ব্যক্তিকে অবশ্যই সন্তানের জৈবিক বা দত্তক পিতা বা সন্তানের মায়ের পার্টনার হতে হবে, এবং শিশুর জন্ম বা দত্তক নেওয়ার আগে ১৩ মাসের মধ্যে কমপক্ষে ১০ মাস কাজ করতে হবে।
অর্থপ্রদানের পরিমাণ: বর্তমানে  করপ্রদানের পূর্বে প্রতি সপ্তাহে ৭১৯.৩৫ (সেপ্টেম্বর ২০২১ অনুযায়ী), এবং সর্বোচ্চ দুই সপ্তাহের জন্য। অর্থপ্রদান করযোগ্য আয় এবং সাধারণ কর ছাড় সাপেক্ষ।
অর্থপ্রদানের সময়: সন্তানের জন্ম বা দত্তক নেওয়ার প্রথম ৫২ সপ্তাহের মধ্যে যে কোনও সময় অর্থপ্রদানের দাবি জানানো যেতে পারে, তবে এটি অবশ্যই সন্তানের জন্ম বা দত্তক নেওয়ার ৫২ সপ্তাহের মধ্যে দাবি করতে হবে।
কাজের বিধিনিষেধ: বাবা এবং তাঁর পার্টনার বেতন পাওয়ার সময়কালে কাজ করবেন না বা সবেতন ছুটি নেবেন না।
অন্যান্য এনটাইটেলমেন্টের উপর প্রভাব: ড্যাড অ্যান্ড পার্টনার পে অন্য সরকারি পেমেন্টের জন্য একজন ব্যক্তির যোগ্যতাকে প্রভাবিত করতে পারে, যেমন ফ্যামিলি ট্যাক্স বেনিফিট, এবং নিয়োগকর্তা–প্রদত্ত এনটাইটেলমেন্টগুলিকেও প্রভাবিত করতে পারে।
প্রকল্পের প্রভাব সন্তানের জন্মের সময় ছুটি নেওয়ার জন্য আর্থিক সহায়তা পিতাদের একটি বৃহত্তর ভূমিকা দিতে পারে যা আর্থিক সীমার বাইরেও প্রসারিত হয়, এবং পিতাদের যত্নের কাজে অবিলম্বে নিযুক্ত হতে উৎসাহিত করে। এই ছুটি পিতাকে একটি সহ–অভিভাবক সম্পর্ক গড়ে তোলার সুযোগ দিতে পারে, এমন অভিজ্ঞতা দেয় যা পিতৃত্বের ধারণাকে নতুন আকার দেয় এবং শিশুর যত্নে তাঁদের ব্যবহারিক ও মানসিক বিনিয়োগ বাড়াতে পারে।
অতিরিক্তভাবে, বেসরকারি সংস্থাগুলি যারা তাদের নিজস্ব ভাগ করা পিতামাতার ছুটির নীতিগুলির সঙ্গে এই ছুটির পরিপূরণ করে তারা এর ইতিবাচক গ্রহণের কথা রিপোর্ট করে৷
ডেলয়েট তার পিতামাতার ছুটি প্রকল্পের পুরুষ ব্যবহারকারীদের অনুপাত ২০ শতাংশ থেকে ৪০ শতাংশে বৃদ্ধির রিপোর্ট করেছে৷ পিড্বলিউসি তার পিতামাতার ছুটি প্রকল্প ব্যবহার করে পুরুষদের শতাংশ বৃদ্ধির কথা জানিয়েছে, এবং তা ৪৫ শতাংশেরও বেশি।

সূত্র: ‌গ্র‌্যাটান ইনস্টিটিউট, ২০২১ [৩৮]

এছাড়াও অস্ট্রেলিয়া সরকারের স্বাস্থ্য ও বৃদ্ধ পরিচর্যা বিভাগ, হোম কেয়ার, আবাসিক যত্ন ও নমনীয় বয়স্ক যত্ন প্রদানকারীদের জন্য বয়স্ক যত্ন ভর্তুকি প্রদান করছে। সরকারি ভর্তুকিপ্রাপ্ত বয়স্ক যত্ন গ্রহণকারী প্রত্যেক ব্যক্তির পক্ষ থেকে ভর্তুকি দেওয়া হয়। বয়স্ক অস্ট্রেলীয়দের যত্নপ্রদানের ক্ষেত্রে তাঁদের দক্ষতা ও জ্ঞান উন্নত করার উদ্দেশ্যে বয়স্ক পরিচর্যা কর্মীদের প্রশিক্ষণ ও শিক্ষার বিধানের জন্য এই নীতিতে অর্থায়ন অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। অস্ট্রেলিয়ান ইনস্টিটিউট অফ হেলথ অ্যান্ড ওয়েলফেয়ার (এআইএইচড্বলিউ) অনুসারে, ২০১৯–২০ আর্থিক বছরে, অস্ট্রেলিয়ায় এক মিলিয়নেরও বেশি লোক বয়স্ক পরিচর্যা পরিষেবা গ্রহণ করছেন।[৩৯]

কেস স্টাডি ‌৩   সুইডেনে পিতৃ–মাতৃত্ব সুবিধা
দেশ   সুইডেন
সূচনাকাল   ১৯৯৫
বাস্তবায়নকারী সংস্থা   সুইডিশ সামাজিক বিমা সংস্থা
মডেল সম্পর্কে সুইডেনের প্রতিটি পিতামাতা তাদের মজুরির ৮০ শতাংশ সহ ৯০ দিন (বা ১২ সপ্তাহের বেশি) করে ছুটি পাওয়ার অধিকারী, এবং ৪৮০ ভাগ করা দিনেরও অধিকারী, যার মধ্যে পিতামাতা উভয়েরই ২৪০ দিন করে রয়েছে।
মূল বৈশিষ্ট্য সুইডেনের প্রতিটি পিতামাতা তাদের মজুরির ৮০ শতাংশ সহ ৯০ দিন (বা ১২ সপ্তাহের বেশি) করে ছুটি পাওয়ার অধিকারী, এবং ৪৮০ ভাগ করা দিনেরও অধিকারী, যার মধ্যে পিতামাতা উভয়েরই ২৪০ দিন করে রয়েছে।
মূল বৈশিষ্ট্য সন্তানের প্রথম বছরে পিতামাতা উভয়ের জন্য একই সময়ের মধ্যে ৩০ দিনের বেশি (তথাকথিত ‘ডবল দিন’) ছুটি নেওয়ার সুযোগ রয়েছে। সন্তানের চতুর্থ জন্মদিনের আগে পিতামাতার সুবিধার ৩৪৮ দিন  নিতে হবে। অবশিষ্ট ৯৬ দিন সংরক্ষিত রেখে সর্বশেষে নেওয়া যেতে পারে শিশুর ১২ বছর বয়স বা পঞ্চম শ্রেণি শেষ হওয়ার আগে।
প্রকল্পের প্রভাব ১৯৯৫ সালে জন্মগ্রহণকারী শিশুদের জন্য ৭৭ শতাংশ বাবা সন্তানের ৪ বছর বয়সে পৌঁছনোর আগে পিতামাতার ছুটি ব্যবহার করেছেন।
এই জাতীয় নীতিগুলির মাধ্যমে সুইডেন উচ্চ মহিলা শ্রমশক্তি অংশগ্রহণের হার এবং নিম্ন শিশু দারিদ্র্যের সঙ্গে তুলনামূলকভাবে উচ্চ উর্বরতা স্তরকে একত্র করতে সক্ষম হয়েছে।

সূত্র: ইনস্টিটিউট ফর ফিউচার স্টাডিজ, ২০০৫[৪০‌]

কেস স্টাডি ‌৪ জার্মানিতে শিশুদের জন্য ডে সেন্টারের সম্প্রসারণ
দেশ জার্মানি
সূচনাকাল ২০২০–২১
বাস্তবায়নকারী সংস্থা জার্মান সরকার
মডেল সম্পর্কে চাইল্ড কেয়ার ফাইন্যান্সিং নামে পরিচিত জার্মানির বিনিয়োগ কর্মসূচির অংশ হিসাবে  চাইল্ড ডে কেয়ার সুবিধার সম্প্রসারণে ফেডারেল সরকার বহু বিলিয়ন বিনিয়োগ করছে৷
মূল বৈশিষ্ট্য ২০২১ সালে ১ বিলিয়ন ইউরো বরাদ্দ করা হয়েছিল নতুন শিশু যত্ন সুবিধা তৈরি করতে এবং বিদ্যমানগুলিকে উন্নত করার জন্য।
৯০,০০০ নতুন শিশু যত্ন সুবিধা স্থাপন করা হবে।
এছাড়াও গ্রেড ১ থেকে ৪–এর ছেলেমেয়েদের সারা দিনের যত্নের জন্য স্থান সম্প্রসারণের লক্ষ্যে আরও ১.৫ বিলিয়ন ইউরোর তহবিল এবং স্কুলগুলির ডিজিটাল সরঞ্জামগুলিতে বিনিয়োগ হিসাবে ০.৫ বিলিয়ন ইউরো বরাদ্দ করা হয়েছে।
প্রকল্পের প্রভাব উন্নত শিশু যত্ন ও পিতামাতার ক্ষেত্রে ভাল ফল পাওয়া গিয়েছে
চাইল্ড কেয়ার সুবিধাগুলিতে প্রবেশ বৃদ্ধি করে এবং উৎপাদনশীলতা বাড়ায়
ওইসিডি–র একটি প্রতিবেদনে দেখা গেছে যে শিশু যত্ন পরিষেবার সম্প্রসারণ জার্মানিতে শ্রমশক্তিতে মহিলাদের অংশগ্রহণ বাড়িয়ে লিঙ্গ কর্মসংস্থানের ব্যবধান কমাতে অবদান রেখেছে৷

সূত্র: ইউরোপীয় কমিশন[৪১]

কেস স্টাডি ‌৫ আর্জেন্টিনায় মাতৃত্বকালীন ছুটির নীতি আর্জেন্টিনায় মাতৃত্বকালীন ছুটির নীতি
দেশ আর্জেন্টিনা
সূচনাকাল সূচনাকাল ১৯৭৪ সালের জাতীয় কর্মসংস্থান সংক্রান্ত আইনের বিধান অনুসারে নিয়ন্ত্রিত, পরবর্তী বছরগুলিতে সংশোধিত হয়েছে
বাস্তবায়নকারী সংস্থা আর্জেন্টিনা সরকার – জাতীয় সামাজিক নিরাপত্তা সংস্থা
মডেল সম্পর্কে সরকার সম্পূর্ণরূপে মাতৃত্বকালীন ছুটির নগদ সুবিধা প্রদান করে এবং ১৩ সপ্তাহের মাতৃত্বের অধিকার প্রদান করে।
মাতৃত্বকালীন ছুটির পর মায়েরা তিন থেকে ছয় মাসের অনুপস্থিতির অবৈতনিক ছুটিও নিতে পারেন।
প্রতিবন্ধীদের জন্যও ব্যবস্থা রয়েছে। ডাউন সিনড্রোমে আক্রান্ত শিশুদের ক্ষেত্রে প্রদত্ত মাতৃত্বকালীন ছুটি ৬ মাস বাড়ানো হয়।
প্রকল্পের প্রভাব তহবিলযুক্ত মাতৃত্বকালীন ছুটি নীতি মায়েদের চাকরির নিরাপত্তা বজায় রাখতে এবং সেইসাথে মা ও শিশুর জীবনযাত্রার মান উন্নত করতে সক্ষম করে।
সমষ্টিগত দর কষাকষি এবং বেসরকারি ক্ষেত্রের উদ্যোগ এই আইনটির কার্যকারিতা বাড়িয়েছে। উদাহরণস্বরূপ কৃষি শ্রম আইনের অধীনে অস্থায়ী শ্রমিকদেরও একই ব্যবস্থার আওতায় আনা হয়েছে।
পারিবারিক ও ব্যবসায়িক সমঝোতা কেন্দ্র (CONFyE) একাধিক উদ্ভাবনী সমাধানের রিপোর্ট করেছে, যেমন পূর্ণ বেতনের জন্য ফিরে আসা মায়েদের জন্য কাজের সময় হ্রাস করা এবং নমনীয় কাজের ব্যবস্থার জন্য সমর্থন।

সূত্র: লিভ নেটওয়ার্ক, ২০২১[৪২]

আরোপ্ণ: মিতালি নিকোর ও অন্যরা।, “লেভারেজিং কেয়ার ইকনমি ইনভেস্টমেন্টস টু আনলক ইকনমিক ডেভলপমেন্ট অ্যান্ড ফস্টার উইমেন’‌স এমপাওয়ারমেন্ট ইন জি20 ‌ইকনমিজ,” টি২০ পলিসি ব্রিফ, জুন ২০২৩।


পাদটীকা

[ক] ইউকে ৫২ সপ্তাহের বিধিবদ্ধ মাতৃত্বকালীন ছুটি বাধ্যতামূলক করেছে, কিন্তু মাতৃত্বকালীন বেতন শুধু ৩৯ সপ্তাহের জন্য প্রদান করা হয়।

[খ] সংবিধিবদ্ধ অধিকার জাতীয়ভাবে বিদ্যমান নেই; যাই হোক, কিছু প্রদেশ ১০–৩০ দিনের পিতৃত্বকালীন ছুটি দেয়।

[গ] কুইবেক ছাড়া কানাডার অন্য কোথাও কোনও বিধিবদ্ধ পিতৃত্বকালীন ছুটি নেই। কানাডায় পিতৃত্বকালীন ছুটি পিতামাতার ছুটির একটি অংশ, যার অর্থ বাবা–মা উভয়েই এই ছুটি একত্রে ব্যবহার করতে পারেন, তবে কমপক্ষে ৫ সপ্তাহ “পিতৃ দিবস”–এর জন্য সংরক্ষিত।

[ঘ] সি১৮৯ কনভেনশন হল একটি আইএলও কনভেনশন যা গৃহকর্মীদের জন্য শ্রমের মান নির্ধারণ করে।

[১] “নট অল গ্যাপস আর ক্রিয়েটেড ইকুয়াল: দ্য ট্রু ভ্যালু অফ কেয়ার ওয়র্ক,” অক্সফাম ইন্টারন্যাশনাল, ২০২৩।

[২] লরা অ্যাডাটি ও অন্যরা, কেয়ার ওয়র্ক অ্যান্ড কেয়ার জবস ফর দ্য ফিউচার অফ ডিসেন্ট ওয়র্ক (জেনিভা: ইন্টারন্যাশনাল লেবার অর্গানাইজেশন (আইএলও), ২০১৮)।

[৩] “স্থিতিশীল উন্নয়ন লক্ষ্যে অগ্রগতি”, ইউএন উইমেন, ২০২২।

[৪] গায়েল ফেরেন্ট, লুকা মারিয়া পেসান্দো, ও কেইকো নোয়াক্কা, “অবৈতনিক পরিচর্যা কাজ: শ্রমের ফলাফলের লিঙ্গ–ব্যবধান বিশ্লেষণে অনুপস্থিত সংযোগ,” ওইসিডি, ডিসেম্বর ২০১৪।

[৫] আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও), “গ্লোবাল ওয়েজ রিপোর্ট ২০১৮/১৯: হোয়াট লায়েস বিহাইন্ড জেন্ডার পে গ্যাপস,” ২০১৮।

[৬] ইনমুজেরেস ও ইউএন উইমেন, “বেস প্যারা উনা এস্ত্রেতেজিয়া ন্যাসিওনাল দি কুইদাদোস,” ২০১৮।

[৭] অ্যাডাটি ও অন্যরা, কেয়ার ওয়ার্ক অ্যান্ড কেয়ার জবস ফর দ্য ফিউচার অফ ডিসেন্ট ওয়ার্ক

[৮] আইএলও, ওয়র্ল্ড এমপ্লয়মেন্ট সোশ্যাল আউটলুক (জেনিভা: ইন্টারন্যাশনাল লেবার অর্গানাইজেশন (আইএলও), ২০১৭)।

[৯] আনা ও’ডোনেল, “কীভাবে শিশু পরিচর্যায় বিনিয়োগ ইন্দোনেশিয়ার জন্য অর্থনৈতিক বৃদ্ধি চালিত করে,” বিশ্ব ব্যাঙ্ক ব্লগ, ২০২৩।

[১০] নিকোর ও অন্যরা, “ভারতের নিখোঁজ কর্মজীবী নারী: গত সাত দশকে এবং কোভিড-১৯ চলাকালীন নারীর অর্থনৈতিক অবদানের যাত্রা।”

[১১] স্টিভেন মাইকেল পেনিংস, “আ জেন্ডার এমপ্লয়মেন্ট গ্যাপ ইনডেক্স,” ২০২২।

[১২] জেরোম দি হেনাও, সুজান হিমেলওয়েট ও ডায়ান পেরনস, “পরিচর্যা অর্থনীতিতে বিনিয়োগ,” আইটিইউসি, ২০১৭।

[১৩] লরা অ্যাডাটি, কাজের সময় পরিচর্যা: আরও লিঙ্গসমতাভিত্তিক কাজের জন্য পরিচর্যা ছুটি ও পরিষেবাগুলিতে বিনিয়োগ করা  (জেনিভা: আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা, ২০২২।

[১৪] ভারত সরকার, “দ্য গ্রুপ অফ টোয়েন্টি (জি২০),” ২০২৩ সালে সংগৃহীত।

[১৫] “জি২০ দেশগুলিতে কর্মরত নারী: ২০১৮ সাল থেকে অগ্রগতি ও নীতি কর্ম: আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও),” আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও), ২০১৯।

[১৬]জি২০ বালি নেতাদের ঘোষণা,, নভেম্বর ২০২২।

[১৭] ক্লেয়ার কোফি ও অন্যরা, “যত্ন করার সময়: অবৈতনিক ও কম বেতনের পরিচর্যার কাজ এবং বৈশ্বিক বৈষম্য সংকট: অক্সফ্যাম,” অক্সফ্যাম ইন্টারন্যাশনাল, ২০২০।

[১৮] ক্রিস্টোফার জে রুহম, “পিতামাতার ছুটির আদেশের অর্থনৈতিক পরিণতি: ইউরোপ থেকে পাঠ,” দ্য কোয়ার্টারলি জারনাল অফ ইকনমিক্স ১১৩, নং ১ (ফেব্রুয়ারি ১, ১৯৯৮): ২৮৫-৩১৭। doi:10.1162/003355398555586.

[১৯] অলিভিয়ার থেভেনন ও অ্যান সোলাজ, “ওইসিডি দেশগুলিতে পিতামাতার ছুটি নীতির শ্রম বাজারের প্রভাব,” ওইসিডি।

[২০] পূর্ণ ব্যানার্জী, শ্রেয়া বিশ্বাস ও দেবজ্যোতি মজুমদার, “মাতৃত্বকালীন ছুটি এবং শ্রম বাজারের ফলাফল,” ৪ জুলাই, ২০২২।

[২১] গালা ডিয়াজ ল্যাঙ্গো ও ফ্লোরেন্সিয়া ক্যারো সাচেটি। “”২৫ বাই ২৫” অর্জন করা: নারীদের শ্রম অন্তর্ভুক্তিকে জি২০ অগ্রাধিকারে পরিণত করার পদক্ষেপ,” সিপেক, ২০১৮।

[২২] “চাইল্ড ট্যাক্স ক্রেডিট,” হোয়াইট হাউস, এপ্রিল ২০২৩–এ অ্যাক্সেস করা হয়েছে।

[২৩] “কাজের আইন এবং সম্পর্কিত মানগুলির একত্রীকরণ,” ফেডারেল সেনেট, ২০১৭, (senado.leg.br)

[২৪] “আর্জেন্টিনার ইউনিভার্সাল চাইল্ড অ্যালাউন্স,” ইউএনএসক্যাপ, এপ্রিল ২০২৩–এ অ্যাক্সেস করা হয়েছে।

[২৫] অ্যাডাটি ও অন্যরা, কেয়ার ওয়র্ক অ্যান্ড কেয়ার জবস ফর দ্য ফিউচার অফ ডিসেন্ট ওয়ার্ক

[২৬] “৩০ ঘণ্টা বিনামূল্যে শিশু পরিচর্যা,” ইউনাইটেড কিংডম সরকার, এপ্রিল ২০২৩–এ সংগৃহীত।

[২৭] “শিশু পরিচর্যার অর্থায়ন ২০২০-২০২১,” ফেডারেল ফ্যামিলি অ্যাফেয়ার্স মন্ত্রক, এপ্রিল ২০২৩–এ অ্যাক্সেস করা হয়েছে।

[২৮] “সরকার শিশু যত্ন সুবিধার জন্য নতুন অনুদানে $৪৪ মিলিয়ন ঘোষণা করেছে,” সাসকাচোয়ান সরকার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২৩।

[২৯] মারিয়ন এফ ক্রিংস ও অন্যরা, “চায়না’‌স এলডার কেয়ার পলিসিজ ১৯৯৪-২০২০: আ ন্যারেটিভ ডকুমেন্ট অ্যানালিসিস,” ইন্টারন্যাশনাল জারনাল অফ রিসার্চ অ্যান্ড পাবলিক হেলথ ১৯, নং ১০ (মে ১৮, ২০২২): ৬১৪১, doi:10.3390/ijerph19106141।

[৩০] ইন্টারন্যাশনাল লেবার অর্গানাইজেশন (আইএলও), “আনুষ্ঠানিক গৃহকর্মFormalizing Domestic Work,”,” ২০১৬।

[৩১] ওইসিডি, “কে যত্ন করে? প্রবীণদের জন্য পরিচর্যা কর্মীদের আকৃষ্ট করা এবং ধরে রাখা,” ২০২০।

[৩২] “বয়স্ক পরিচর্যা ভর্তুকি এবং পরিপূরক,” অস্ট্রেলিয়ার সরকারের স্বাস্থ্য ও বয়স্ক পরিচর্যা বিভাগ, এপ্রিল ২০২৩।

[৩৩] কোফি ক্লেয়ার ও অন্যরা, “যত্ন করার সময়,” অক্সফ্যাম, ২০২০।

[৩৪] “সেন্টার ফর কেয়ার,” টাটা এন্টারপ্রাইজ, ২০২৩ সালের এপ্রিলে অ্যাক্সেস করা হয়েছে।

[৩৫] ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ স্ট্যাটিসটিক্স এ্যান্ড জিওগ্রাফি, “মেক্সিকোর অবৈতনিক পারিবারিক কাজের স্যাটেলাইট অ্যাকাউন্ট,” রাষ্ট্রপুঞ্জের পরিসংখ্যান, ২০২২।

[৩৬] মিতালি নিকোর ও অন্যরা, “ভারতের নিখোঁজ কর্মজীবী নারী: গত সাত দশকে এবং কোভিড-১৯ চলাকালীন নারীর অর্থনৈতিক অবদানের যাত্রা।” জার্নাল অফ ইন্টারন্যাশনাল উইমেনস স্টাডিজ ২৩, নং ৪ (২০২২)।

[৩৭] নিকোর ও অন্যান্য, “ভারতের নিখোঁজ কর্মজীবী নারী”

[৩৮] ড্যানিয়েল উড, ওয়াইন এমসলি ও কেট গ্রিফিথস, ড্যাড ডেজ (গ্র্যাটান ইনস্টিটিউট সাপোর্ট, ২০২১)।

[৩৯] অস্ট্রেলিয়ান ইনস্টিটিউট অফ হেলথ অ্যান্ড ওয়েলফেয়ার, অস্ট্রেলীয় সরকার, ২০২১।

[৪০] অ্যান-জোফি ডুভান্ডার, টমি ফেরারিনি, ও সারা থালবার্গ, “সুইডিশ পিতামাতার ছুটি ও লিঙ্গ সমতা,” ইনস্টিটিউট ফর ফিউচার স্টাডিজ, ২০০৫।

[৪১] ইউরোপীয় কমিশন, “জার্মানির পুনরুদ্ধার ও স্থিতিস্থাপকতা – সমর্থিত প্রকল্প“।

[৪২] ইন্টারন্যাশনাল নেটওয়ার্ক অন লিভ পলিসিজ অ্যান্ড রিসার্চ, “আর্জেন্টিনা,” ২০২১।

The views expressed above belong to the author(s). ORF research and analyses now available on Telegram! Click here to access our curated content — blogs, longforms and interviews.

Authors

Sunaina Kumar

Sunaina Kumar

Sunaina Kumar is a Senior Fellow at ORF and Executive Director at Think20 India Secretariat. At ORF, she works with the Centre for New Economic ...

Read More +
Carolina Robino

Carolina Robino

Carolina Robino Senior Program Specialist Sustainable and Inclusive Economies International Development Research Centre (Canada)

Read More +
Florencia Caro Sachetti

Florencia Caro Sachetti

Florencia Caro Sachetti Senior Coordinator Social Protection Programme CIPPEC

Read More +
Gala Daz Langou

Gala Daz Langou

Gala Daz Langou Executive Director CIPPEC and Professor di Tella University

Read More +
Gloria Langat

Gloria Langat

Gloria Langat Research Scientist Aging and Development Unit African Population and Health Research Center

Read More +
Mannat Sharma

Mannat Sharma

Mannat Sharma Research Manager Nikore Associates

Read More +
Sukriti Anand

Sukriti Anand

Sukriti Anand Research Associate Nikore Associates

Read More +
Margo Thomas

Margo Thomas

Margo Thomas President and CEO Womens Economic Imperative the US

Read More +
Mitali Nikore

Mitali Nikore

Mitali Nikore is an experienced infrastructure and industrial development economist and founder of Nikore Associates a youth-led policy design and economics think tank

Read More +