Published on Apr 18, 2023 Updated 0 Hours ago
আধা–শহর ও গ্রামীণ এলাকায় বর্জ্য থেকে শক্তি প্রকল্পের মাধ্যমে শক্তি রূপান্তর

ভারতে বর্জ্য থেকে শক্তি উৎপাদন প্রকল্পগুলি ঐতিহাসিকভাবে শহরকেন্দ্রিক। যেহেতু শহরগুলিতে এলপিজি ও সিএনজি’‌র ভাল বিতরণ ব্যবস্থা থাকে, তাই উৎপাদিত বায়ো–সিএনজি হয় শহুরে গণ–পরিবহণে জ্বালানি সরবরাহের জন্য ব্যবহার করতে হয়, অথবা যথেষ্ট খরচ করে গ্রামীণ এলাকায় নিয়ে যেতে হয়। গ্রামীণ ও আধা–শহুরে এলাকায় মিউনিসিপ্যাল জৈব বর্জ্য থেকে কমপ্রেসড বায়োগ্যাস (সিবিজি) উৎপাদন ও বিতরণ স্থানীয় গ্রাহকদের জন্য একটি সস্তা বিকল্প হতে পারে। সিবিজি’‌র এই ধরনের উৎপাদন ও বিতরণ কিন্তু রান্নার জন্য কঠিন জ্বালানি ব্যবহারের কারণে গৃহস্থালির বায়ুদূষণ এবং রান্নার জ্বালানি আমদানির কারণে বৈদেশিক মুদ্রার বহিঃপ্রবাহের সমস্যারও সমাধান করবে। এই সংক্ষিপ্ত নিবন্ধে সিবিজি’‌র জন্য দুটি ডেলিভারি মডেল নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে, এবং যুক্তি দিয়ে দেখানো হয়েছে যে ভারত শক্তির রূপান্তর ত্বরান্বিত করার জন্য বিশ্বের কাছে তার নিজস্ব মডেল প্রদর্শন করার উপযুক্ত অবস্থানে রয়েছে।

আরোপণ: অরিত্র ভৌমিক ও অনমিত্র অনুরাগ দণ্ড, ‘‌এনার্জি ট্র‌্যানজিশন থ্রু ওয়েস্ট–টু–এনার্জি প্রোজেক্টস ইন পেরি–আরবান অ্যান্ড রুরাল এরিয়াজ,’‌ ওআরএফ ইস্যু  ব্রিফ নং ৬০৬, অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন৷


ভূমিকা

গত এক দশকে ভারত কাঠ, বায়োমাস, ও ঘুঁটের মতো কঠিন জ্বালানিগুলিকে পরিচ্ছন্ন রান্নার বিকল্প, প্রাথমিকভাবে তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি) দিয়ে প্রতিস্থাপনে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে। এই রূপান্তরটি গৃহস্থালির বায়ুদূষণ (এইচএপি) এবং রান্নার জন্য কঠিন জ্বালানি ব্যবহারের কারণে সৃষ্ট অসুস্থতা ও মৃত্যুর সমস্যা মোকাবিলায় সহায়তা করে।[১] এইচএপি কমপক্ষে দেশে বার্ষিক ৮০০,০০০ অকালমৃত্যু ঘটায়।[২]

২০২১ সালের এপ্রিলের মধ্যে ভারতের সমস্ত পরিবারের প্রায় ৯৯.৯৮ শতাংশ এলপিজি ব্যবহার করছিল,[৩] এবং ২০১৩–১৪ ও ২০২১–২২–এর মধ্যে গার্হস্থ্য এলপিজি ব্যবহার ৭৬ শতাংশেরও বেশি বৃদ্ধি পেয়েছিল।[৪] ২০২১–২২ অর্থবর্ষে ভারত ৩০৫ মিলিয়ন সক্রিয় এলপিজি গ্রাহক নথিভুক্ত করেছে, যার মধ্যে ২০১৬ সালে ‘প্রধানমন্ত্রী উজ্জ্বলা যোজনা’ (পিএমইউওয়াই) প্রকল্প চালু হওয়ার পরে ৯০ মিলিয়ন যুক্ত হয়েছিল।[৫],[৬] তবে চলতি অর্থবর্ষ ২০২২–২৩–এ বাজেট বরাদ্দ আগের ₹১৬ বিলিয়ন থেকে অর্ধেক, অর্থাৎ ₹৮ বিলিয়ন করে দেওয়া থেকে বোঝা যায় পিএমইউওয়াই প্রায় সম্পৃক্তির কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছে।[৭] তবে পিএমইউওয়াই সুবিধাভোগীদের তুলনায় নন–পিএমইউওয়াই ভোক্তাদের এলপিজি ব্যবহার কার্যত অর্ধেক বলে মনে হচ্ছে।[৮]

রান্নার কঠিন জ্বালানি প্রতিস্থাপিত করে এলপিজি ব্যবহারের মাধ্যমে স্বাস্থ্য ও পরিবেশগত সুবিধাগুলিকে সর্বোত্তম পর্যায়ে নিয়ে যেতে সংযোগ ও টেকসই ব্যবহারের মধ্যে ব্যবধান পূরণ করার জন্য উল্লেখযোগ্য প্রয়াস প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে ভর্তুকি পরে দেওয়ার পরিবর্তে অগ্রিম ভর্তুকি দেওয়া, উন্নত বিতরণ নেটওয়ার্ক তৈরি করা ও গ্রামীণ পরিবেশকদের জন্য প্রণোদনার মতো পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।[৯] এগুলি অবশ্যই এলপিজি’‌র ব্যবহার উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে, কিন্তু একইসঙ্গে আমদানি নির্ভরতাকেও স্থায়ী করতে পারে।[১০]

এই সংক্ষিপ্ত নিবন্ধে মিউনিসিপ্যাল সলিড ওয়েস্ট (এমএসডব্লিউ) থেকে রান্নার জ্বালানি হিসাবে বায়োগ্যাসের সম্ভাব্যতা খতিয়ে দেখা হয়েছে, যা স্থানীয়ভাবে উৎপাদন ও বিতরণ করা হলে গ্রামীণ ও আধা–শহুরে গ্রাহকদের জন্য একটি সস্তা বিকল্প হতে পারে, এবং এইভাবে একইসঙ্গে এইচএপি এবং রান্নার জ্বালানি আমদানির কারণে বৈদেশিক মুদ্রার বহিঃপ্রবাহের সমস্যাগুলির সমাধান করতে পারে। এই লক্ষ্য অর্জনের জন্য বর্জ্য–থেকে–শক্তি কর্মসূচি বাস্তবায়নে ২ নভেম্বর ২০২২–এ জারি করা  ২০২১–২২ থেকে ২০২৫–২৬ অর্থবর্ষের (পর্যায় ১) জন্য ভারত সরকারের নির্দেশিকায় প্রকল্পের বিকাশকারীদের জন্য ₹৬ বিলিয়ন মূল্যের আর্থিক সহায়তা বরাদ্দ করা হয়েছে।[১১] উপরন্তু, বায়োগ্যাস উৎপাদনের জন্য বার্ষিক উৎপন্ন আনুমানিক ১০৮ মিলিয়ন টন জৈব কঠিন বর্জ্য ব্যবহার করা যেতে পারে, এবং এইভাবে এমএসডব্লিউ’‌র অব্যবস্থাপনার মোকাবিলা করার পাশাপাশি, যার বায়ুমণ্ডলে তাপ আটকে রাখার ক্ষমতা ১০০ বছরের সময়কালে কার্বন ডাইঅক্সাইডের চেয়ে ২৮ থেকে ৩৬ গুণ বেশি সেই মিথেন নির্গমন, এড়ানো যেতে পারে।[১২] । প্রতি বছর ২২৬ মিলিয়ন টন বা তার বেশি এমএসডব্লিউ উৎপাদনের ক্ষেত্রে ভারত ১৬৪টি দেশের মধ্যে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। এমএসডব্লিউ’‌র প্রায় ৪৮ শতাংশ জৈব পদার্থ দিয়ে  গঠিত।[১৩]

বর্জ্য–থেকে–শক্তির স্থানীয় উৎপাদন ও বণ্টনের মডেলটি উন্নয়নশীল বিশ্বের ভালভাবে কাজে লাগতে পারে, যার মধ্যে এলডিসি–গুলিও রয়েছে যেখানে রান্নার কঠিন জ্বালানির উচ্চ ব্যবহার দেখা যায়। দৃষ্টান্তের উদ্দেশ্যে এই নিবন্ধটি ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সুন্দরবন অঞ্চলকে বিবেচনা করেছে। এই অঞ্চলটি রাজ্যের দরিদ্রতম, বদ্বীপের ছোট ছোট দ্বীপ নিয়ে গঠিত, সম্প্রসারণকারী গ্যাস গ্রিডের সঙ্গে এর কখনও সংযুক্ত হওয়ার সম্ভাবনা নেই, এবং উপাদান ও পরিষেবা সরবরাহের জন্য লজিস্টিক চ্যালেঞ্জ তৈরি করে। যদি সুন্দরবনে সিবিজি’‌র স্থানীয় উৎপাদন ও বিতরণ করা যায়, তাহলে মডেলটি ভারতের অন্য গ্রামীণ ও আধা–শহর অঞ্চলে এবং উন্নয়নশীল  বিশ্বের অন্যান্য দেশে অনুকরণীয় হবে।

বিশ্ব ব্যাঙ্কের ২০১৪–র একটি প্রতিবেদন অনুসারে,[১৪] অপ্রতুল জল সরবরাহ, স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্য (ডব্লিউএসএইচ) ছাড়াও সুন্দরবনের প্রাথমিক পরিবেশগত স্বাস্থ্য  ঝুঁকিগুলির মধ্যে একটি হল কঠিন রান্নার জ্বালানি ব্যবহারের কারণে গৃহস্থালির বায়ুদূষণ। বায়োমাস–ভিত্তিক রান্নার জ্বালানি থেকে উচ্চ মাত্রার অভ্যন্তরীণ বায়ুদূষণের সংস্পর্শে আসার এই বিপদ বিশেষ করে নারী ও শিশুদের মধ্যে মৃত্যুহার ও অসুস্থতার ক্ষেত্রে যথেষ্ট অবদান রাখে।[১৫] নারী ও শিশুরা সাধারণত রান্না ও জ্বালানি কাঠ সংগ্রহের মতো কাজগুলি করে থাকে, এবং গৃহে দূষিত জ্বালানির ব্যবহার থেকে তারা সবচেয়ে মারাত্মক স্বাস্থ্যগত পরিণতি ভোগ করে।[১৬] শুধু ২০০৮ সালে এই ঝুঁকির কারণে আনুমানিক ১,৮৫০ জনের মৃত্যু এবং প্রায় ৩৭০,০০০ অসুস্থতার, যেমন তীব্র নিম্ন শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ, তীব্র উপরের শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ এবং দীর্ঘস্থায়ী  অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি রোগে আক্রান্ত হওয়ার, ঘটনা ঘটেছে। এই স্বাস্থ্যগত প্রভাবগুলির বার্ষিক খরচ ₹১.৫ থেকে ৩.৮ বিলিয়নের মধ্যে বলে অনুমান করা হয়েছে। এই মোট খরচের প্রায় ৮০ শতাংশ মৃত্যুর সঙ্গে এবং ২০ শতাংশ অসুস্থতার সঙ্গে জড়িত।[১৭]

রান্নার পরিচ্ছন্ন জ্বালানি হিসেবে এলপিজি

২০১৬ সালের মে মাসে পেট্রোলিয়াম ও প্রাকৃতিক গ্যাস মন্ত্রক জ্বালানি কাঠ, কয়লা, ও ঘুঁটের মতো প্রথাগত রান্নার জ্বালানিকে[১৮] সমস্ত গ্রামীণ পরিবারে এবং শহুরে এলাকার বঞ্চিত পরিবারগুলিতে পরিচ্ছন্ন রান্নার জ্বালানি এলপিজি দিয়ে প্রতিস্থাপন করার উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী উজ্জ্বলা যোজনা (পিএমইউওয়াই) চালু করে। প্রকল্পের লক্ষ্য ছিল ২০২০ সালের মার্চের মধ্যে ৮০ মিলিয়ন এলপিজি সংযোগ দেওয়া। এই  প্রকল্পে ১৪.২ কেজি সিলিন্ডার ও ৫ কেজি সিলিন্ডারের জন্য যথাক্রমে ₹১,৬০০ বা  ₹১,১৫০ আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়। উপরন্তু, ভোক্তাদের একবার বিনামূল্যে রিফিল করার ব্যবস্থাও ছিল। ভর্তুকির টাকা সুবিধাভোগীদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে জমা পড়ে। ২১ মে ২০২২–এ সরকার ২০২২–২৩ বছরের জন্য ১২টি রিফিল পর্যন্ত পিএমইউওয়াই সুবিধাভোগীদের প্রতি ১৪.২ কেজি সিলিন্ডারে ₹২০০–এর ভর্তুকি দেবে বলে ঘোষণা করেছে। যাই হোক, এলপিজি ব্যবহারের জন্য জাতীয় গড় নিম্নমাত্রার, বার্ষিক ৬.২৫ সিলিন্ডার (১৪.২);‌ এবং পিএমইউওয়াই সুবিধাভোগীদের জন্য তা আরও কম, ২.৭৬ সিলিন্ডার (১৪.২ কেজি)।[১৯] প্রধান এলপিজি বিতরণ সংস্থাগুলির মতে, ২০২১–২২ পর্যন্ত প্রায় ৮৯ মিলিয়ন সংযোগ প্রদান করা হয়েছিল, যার মধ্যে ১০ মিলিয়ন গ্রাহক একবার তাঁদের সিলিন্ডার রিফিল করেছিলেন; নয় মিলিয়ন একবারও রিফিল করেননি।[২০]

নিম্নলিখিত অনুচ্ছেদগুলি রান্নার জ্বালানি হিসাবে এলপিজি কম গ্রহণের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণগুলির রূপরেখা দেয়৷

জ্বালানি জমানো: ঐতিহাসিকভাবে, ভারতে উল্লেখযোগ্য অনুপাতের পরিবার রান্নার জন্য একাধিক জ্বালানি ব্যবহার করেছে, যেমন কাঠ, গোবর বা ফসলের অবশিষ্টাংশ। ১৯৭৭ সালে, ভারত জুড়ে সমস্ত পরিবারের মাত্র ২.৫ শতাংশ এলপিজি গ্রাহক ছিল;[২১] এই অনুপাতটি এখন ৯৯.৯৮ শতাংশ বলে সরকার দাবি করেছে।[২২]  এলপিজি ব্যবহারের সুযোগ বৃদ্ধি সত্ত্বেও, প্রায় ৩৮ শতাংশ ভারতীয় বাড়িতে কঠিন জ্বালানির পরিপূরক হিসাবে এলপিজি ব্যবহার করা হয়। এই পরিবারগুলির অধিকাংশই ভারতের পূর্ব ও মধ্য অঞ্চলের গ্রামীণ জেলায়।[২৩]

সামর্থ্য: এলপিজি কম গ্রহণের প্রাথমিক কারণগুলির মধ্যে একটি হল সংযোগ ও রিফিলের খরচ। শুধুই এলপিজি ব্যবহার করলে রিফিলিংয়ের জন্য ভারতের একটি গড় গ্রামীণ পরিবারকে তাদের সামগ্রিক মাসিক ব্যয়ের ৯.৩ শতাংশ ব্যয় করতে হবে; শহর এলাকায় এই অনুপাত ৭.১ শতাংশ।[২৪]

ভর্তুকি প্রাপ্তি: ভর্তুকির পরিমাণ প্রতিটি রিফিলের পরে সরাসরি গ্রাহকের অ্যাকাউন্টে জমা হয়। তাই, ভোক্তাকে পুরো রিফিলের টাকা আগে খুচরা বিক্রেতাকে দিতে হয়। অগ্রিম ₹১,০৬৭ টাকা দিতে অক্ষমতা, বা অনিচ্ছা, একটি প্রতিবন্ধক। একটি অ–লাভজনক নীতি গবেষণা প্রতিষ্ঠান কাউন্সিল অন এনার্জি, এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড ওয়াটার (সিইইডব্লিউ)–এর একটি সমীক্ষা অনুসারে,[২৫] লক্ষ্যের অন্তর্ভুক্ত পরিবারগুলির ১৩ শতাংশ শেষ এলপিজি রিফিলের জন্য ভর্তুকি পায়নি, এবং ২৩ শতাংশ পরিবার পেয়েছে কি না তা জানত না।

এলপিজির অনুপলব্ধতা: বর্তমানে দেশে প্রায় ২৬,০০০ এলপিজি পরিবেশক রয়েছে।[২৬]  যাই হোক, সমস্ত গ্রামীণ এলপিজি ব্যবহারকারীর মাত্র ৫৪ শতাংশ লজিস্টিক সীমাবদ্ধতার কারণে বাড়িতে তাঁদের এলপিজি রিফিল–এর সরবরাহ পান।[২৭]  গ্রামীণ এলাকায়, যেসব পরিবারে বাড়িতে ডেলিভারি করা হয় না, তাঁদের সিলিন্ডার রিফিল করতে এবং বাড়ি ফেরার জন্য গড়ে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করতে হয়।

বায়োমাস থেকে এলপিজিতে (বা সমতুল্য রান্নার জ্বালানিতে) একটি টেকসই রূপান্তর তখনই সম্ভব হবে যখন এগুলির উপভোগ বজায় রাখতে পরিবারের আয় বৃদ্ধি পাবে।[২৮] সময় সাশ্রয়ের মূল্যায়নও বাড়াতে হবে। ভারতীয় সুন্দরবনে বিশ্ব ব্যাঙ্কের একটি সমীক্ষা অনুসারে, এলপিজি চুলা ব্যবহার করলে খরচের তুলনায় সুবিধা সর্বনিম্ন, যদি না সমস্ত সুবিধা (স্বাস্থ্য, জ্বালানি, এবং সময় সুবিধা) অন্তর্ভুক্ত করা হয়।[২৯] পিএমইউওয়াই থেকেই বর্জ্য–থেকে–শক্তি কর্মসূচিতে ভর্তুকি দেওয়ার উপর জোর দেওয়া উপযুক্ত কাজ হবে।

পৌর কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা

বিশ্বব্যাপী দ্রুত নগরায়ণ, ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা, এবং উন্নয়নশীল বিশ্বে জীবনশৈলী ও খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তনগুলি বর্জ্য উৎপাদন বৃদ্ধির দিকে চালিত করছে। বর্জ্য  ব্যবস্থাপনা ব্যয়বহুল এবং নিম্ন আয়ের দেশগুলিতে অনেক স্থানীয় প্রশাসনের জন্য এটি একক সর্বোচ্চ বাজেটের আইটেম হতে পারে, গড়ে পৌর বাজেটের প্রায় ২০ শতাংশ। মধ্য আয়ের দেশগুলিতে কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সাধারণত পৌর বাজেটের ১০ শতাংশের বেশি।[৩০] ভারত একটি নিম্ন–মধ্য আয়ের দেশ হওয়ায় এর মাঝামাঝি কোথাও পড়ে, এবং প্রতি বছর কমপক্ষে ২২৬ মিলিয়ন টন মিউনিসিপাল সলিড ওয়েস্ট (এমএসডব্লিউ) বর্জ্য ব্যবস্থাপনার[৩১] জন্য একটি বড় বাজেটের প্রয়োজন, যার মধ্যে প্রায় ৪৮ শতাংশই জৈব পদার্থ দিয়ে গঠিত।[৩২]

প্রকৃতপক্ষে, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এমন একটি জটিল সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে যে ভারতকে অবিলম্বে কার্যকরভাবে খরচের সমাধান করতে হবে। অন্য অনেক দেশ একই অভিজ্ঞতা অর্জন করছে, এবং দ্বীপের মতো ছোট ভৌগোলিক অঞ্চলে সমস্যাটি আরও জটিল হয়, কারণ সেখানে ভূমি সীমিত এবং প্রাকৃতিক প্রাচীর, উপহ্রদ বা উপকূলীয় মৎস্যসম্পদ ও মিষ্টি জলের এলাকা দূষণের জন্য বিশেষভাবে ঝুঁকিপূর্ণ।[৩৩]

পশ্চিমবঙ্গের পৌর কঠিন বর্জ্যে রয়েছে জৈব, অজৈব পুনর্ব্যবহারযোগ্য এবং অজৈব অ–পুনর্ব্যবহারযোগ্য পদার্থ, যেগুলির বেশিরভাগই বিভিন্ন প্রকৃতির। চিত্র ১ এই উপাদানগুলি দেখায়।

চিত্র ১: পশ্চিমবঙ্গে এমএসডব্লিউ’‌র প্রধান উপাদান

সূত্র: পরিবেশ প্রতিবেদন রাজ্য, পশ্চিমবঙ্গ ২০১৬[৩৪]

বিভিন্ন প্রতিবেদন[৩৫] ও নিবন্ধ অনুসারে,[৩৬] পশ্চিমবঙ্গে উৎপন্ন পৌরসভার বর্জ্যের প্রায় ৯০ শতাংশ খোলা জায়গায় ফেলা হয়। ডাম্প সাইটের অবস্থার উপর নির্ভর করে, অবক্ষয় অ্যারোবিক বা অ্যানঅ্যারোবিক হয়। প্রধান অবক্ষয় পণ্য হল কার্বন ডাইঅক্সাইড (সিওটু), অ্যারোবিক প্রক্রিয়ার জন্য জল ও তাপ এবং অ্যানঅ্যারোবিক প্রক্রিয়ার জন্য মিথেন (সিএইচ৪) ও সিওটু।[৩৭]

পশ্চিমবঙ্গের সুন্দরবন অঞ্চলটি প্রধানত গ্রামীণ যেখানে মাত্র দুটি বিধিবদ্ধ শহর রয়েছে (শহুরে স্থানীয় সংস্থা), কিন্তু অঞ্চলটিতে দ্রুত নগরায়ণ হচ্ছে। ২৪টি সেন্সাস টাউনের জনসংখ্যা ২০০১ সালের ৬৫,৬৮৪ থেকে বেড়ে ২০১১ সালে ৩১৮,১৯৬–এ দাঁড়িয়েছে। সেন্সাস টাউন [৩৮] হল ভারতের রেজিস্ট্রার জেনারেল এবং সেন্সাস কমিশনার দ্বারা সংজ্ঞায়িত একটি শহুরে এলাকা, যা বিধিবদ্ধভাবে বিজ্ঞাপিত বা শহর হিসাবে প্রশাসিত নয়। একটি গ্রামকে একটি সেন্সাস টাউন হিসাবে তখনি বিবেচনা করা হয় যদি তার মধ্যে থাকে: ১) > ৫,‌০০০ জনসংখ্যা, ২) পুরুষপ্রধান কর্মক্ষম জনসংখ্যার কমপক্ষে ৭৫ শতাংশ নিযুক্ত থাকে অকৃষি ক্ষেত্রে, এবং ৩) প্রতি বর্গ–কিমি প্রতি ৪০০ জনের ন্যূনতম ঘনত্ব থাকে। এই অঞ্চলের সবচেয়ে জনবহুল সেন্সাস টাউনের জনসংখ্যা ৩১,০০০, অন্য আটটিতে ১০,০০০–এর বেশি মানুষ আছেন। বাকিদের জনসংখ্যা ৫,০০০ থেকে ১০,০০০ এর মধ্যে। সাধারণত, এই সেন্সাস টাউনগুলির একটি পরিবার প্রতিদিন এক কিলোগ্রাম কঠিন বর্জ্য তৈরি করে।[৩৯] সামগ্রিকভাবে, ১৯০টি স্বশাসিত গ্রাম ক্লাস্টার (গ্রাম পঞ্চায়েত) রয়েছে, যার মধ্যে প্রায় ১০ লাখ পরিবার আছে যাদের সম্ভাব্য বর্জ্য উৎপাদন প্রতিদিন এক মিলিয়ন কেজি হয়। ৯০ শতাংশ বর্জ্য খোলা জায়গায় ফেলা হয় বিবেচনা করে বলা যায় সুন্দরবন অঞ্চল প্রতি বছর প্রায় ০.৬ মেগাটন সিওটু নিঃসরণ করছে।[৪০]  ক্রমবর্ধমান নগরায়ণের সঙ্গে এটি শুধুই বাড়বে।

চিত্র ২ সুন্দরবন এবং গ্রামগুলিতে সেন্সাস টাউন ও ইউএলবি–গুলির অবস্থান দেখায়, যেগুলিতে বিকেন্দ্রীকৃত উৎপাদন ও পরিচ্ছন্ন রান্নার জ্বালানি বিতরণের অভাব পূরণ করা কঠিন।

চিত্র ২: সুন্দরবনের সেন্সাস টাউন এবং ব‌‌‌‌‌‌নের ধারের গ্রাম

সূত্র:‌ ডব্লিউডব্লিউএফ–ইন্ডিয়া

বর্জ্য–থেকে–শক্তি কর্মসূচির সম্ভাবনা

বায়োমিথেনেশন হল উচ্চ জৈব ও আর্দ্রতার উপস্থিতি এবং বিকেন্দ্রীকৃত উৎপাদন ও পরিচ্ছন্ন রান্নার জ্বালানি বিতরণের কারণে ভারতীয় পৌর কঠিন বর্জ্যের
(এমএসডব্লিউ) জন্য সবচেয়ে প্রযুক্তিগতভাবে কার্যকর বিকল্পগুলির মধ্যে একটি। সহজ ছোট থেকে মাঝারি আয়তনের সিস্টেমগুলি ইতিমধ্যেই তৈরি করা হয়েছে এবং ভারতের বিভিন্ন অংশে স্থাপন করা হচ্ছে।[৪১] নতুন ও পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি মন্ত্রকের মতে, ভারত জুড়ে ৪.৩ মিলিয়ন ফ্যামিলি–টাইপ বায়োগ্যাস প্লান্ট স্থাপন করা হয়েছে। ছোট আকারের এমএসডব্লিউ–ভিত্তিক বায়োগ্যাস প্ল্যান্টের কিছু সুপরিচিত উদাহরণ হল:

১। বিজয়ওয়াড়াতে বায়োগ্যাস উৎপাদনের জন্য ১৬ টন এমএসডব্লিউ এবং প্রতিদিন চার টন (টিপিডি) কসাইখানার বর্জ্য ব্যবহার করা হয়;

২। চেন্নাইয়ের কোয়াম্বেদুতে একটি ৩০ টিপিডি ফুল ও ফলের বাজারের বর্জ্যভিত্তিক বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট চালু আছে; এবং

৩। লখনউতে ৫০০ টিপিডি এমএসডব্লিউ–ভিত্তিক সুবিধা রয়েছে।

এমএসডব্লিউ–ভিত্তিক বড় বায়োগ্যাস প্ল্যান্টগুলি ভারতে সীমিত সাফল্য পেয়েছে। তা সত্ত্বেও ভারতের বৃহত্তম বেসরকারি ক্ষেত্রের ব্যাঙ্ক[৪২] সম্প্রতি এশিয়ার বৃহত্তম বায়ো–সিএনজি প্ল্যান্টে বিনিয়োগ করেছে। এমএসডব্লিউ–ভিত্তিক বড় বায়োগ্যাস প্লান্টের সীমিত সাফল্যের সঙ্গে মৌলিক প্রযুক্তির কোনও সম্পর্ক নেই। বরং, প্রক্রিয়া সম্পর্কে অনুধাবনের অভাব, দুর্বল পরিকল্পনা ক্ষমতা, এবং এমএসডব্লিউ সরবরাহের গুণমান ও পরিমাণের সমস্যাগুলিই হল এর কারণ। বায়োমিথেনেশন প্ল্যান্টের সামগ্রিক কর্মক্ষমতা ইনপুট ফিড স্পেসিফিকেশন দ্বারা ব্যাপকভাবে প্রভাবিত হয়, এবং প্ল্যান্টের সর্বোত্তম কর্মক্ষমতার জন্য পৃথক বায়োডিগ্রেডেবল এমএসডব্লিউ প্রয়োজন। এটা মনে রাখা প্রয়োজন যে ফিড উপাদানের একজাতীয়তা প্ল্যান্টের দক্ষতার একটি গুরুত্বপূর্ণ মাপকাঠি।

বায়োমিথেনেশন অ–ব্যবস্থাপিত পৌর কঠিন বর্জ্য সমস্যার সমাধান করবে এবং মিথেন নির্গমন হ্রাস করে জলবায়ু সক্রিয়তায় অবদান রাখবে। মিথেন গ্রিনহাউস গ্যাস হিসাবে কার্বন ডাইঅক্সাইডের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী।[৪৩] যাই হোক, একটি বায়োমিথেনেশন প্ল্যান্টের জন্য জড় পদার্থ থেকে মুক্ত অবক্ষয়যোগ্য জৈব পদার্থের একটি ধারাবাহিক উৎসের পাশাপাশি উপযুক্ত অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে উৎপন্ন বায়োগ্যাসের স্থিতিশীল চাহিদা প্রয়োজন।

যদিও একটি বায়োমিথেনেশন প্ল্যান্ট বিকেন্দ্রীকৃত স্তরে (৫ টিপিডি পর্যন্ত) পরিচালনযোগ্য, তা হলেও স্থানীয় কর্তৃপক্ষের জন্য বায়োমিথেনেশন খোলা অ্যারোবিক কম্পোস্টিংয়ের চেয়ে বেশি ব্যয়বহুল;‌ তবে প্রক্রিয়াটি অনেক কম দুর্গন্ধ ছড়ায়, জমির প্রয়োজন হয় কম, এবং স্ক্যাভেঞ্জার পাখির ঝাঁক থেকে এর কোনও বিপদ নেই। উচ্চ জনসংখ্যা–ঘনত্বের এলাকার জন্য এই সমস্ত সুবিধাগুলি লক্ষণীয়। বায়োমিথেনেশন প্ল্যান্টের অর্থনৈতিক কার্যকারিতা নিশ্চিত করা যেতে পারে যদি প্ল্যান্টের আশেপাশে উৎপন্ন বায়োগ্যাস এবং প্রক্রিয়া চলাকালীন উৎপাদিত স্লাজ ম্যানিওরের জন্য একটি স্থিতিশীল ও কার্যকর বাজার থাকে।

সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট রুলস, ২০১৬ [৪৪] বায়োমিথেনেশনের বিষয়ে নির্দেশিকা প্রদান করে। এর অনুবিধি ১৫–এ ‘‌সেন্সাস টাউন ও শহুরে অঞ্চলের স্থানীয় কর্তৃপক্ষ ও গ্রাম পঞ্চায়েতের দায়িত্ব ও কর্তব্য’‌ উল্লেখ করা হয়েছে। অনুবিধি ৪ ‘ওয়েস্ট জেনারেটরের দায়িত্ব’‌ নির্ণীত করে। ‘‌ওয়েস্ট জেনারেটর’‌ শব্দের অর্থ প্রত্যেক ব্যক্তি বা ব্যক্তিগোষ্ঠী, প্রতিটি আবাসিক প্রাঙ্গণ, এবং ভারতীয় রেলওয়ে, প্রতিরক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ অনাবাসিক স্থাপনা, যা কঠিন বর্জ্য উৎপন্ন করে।

রান্নার জন্য কঠিন জ্বালানি ব্যবহার, এলপিজি’‌র কম ব্যবহার, এবং অব্যবস্থাপিত পৌর বর্জ্যের কারণে গৃহস্থালির বায়ুদূষণের বিশাল চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সাহায্য করতে পারে পৌর কঠিন বর্জ্য থেকে বায়োগ্যাস/বায়োসিএনজি উৎপাদন ও বণ্টন। এই দৃষ্টিভঙ্গির দ্বারা পরিচালিত নতুন ও পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি মন্ত্রক প্রথম ধাপে ০১.০৪.২০২১ থেকে ৩১.০৩.২০২৬ সময়কালের জন্য জাতীয় জৈব শক্তি কর্মসূচির বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে৷ কর্মসূচির উদ্দেশ্য হল শহর, শিল্প ও কৃষির বর্জ্য/অবশিষ্ট থেকে বায়োগ্যাস/বায়োসিএনজি/বিদ্যুৎ/উৎপাদক বা  সিনগ্যাস উৎপাদনের জন্য বর্জ্য থেকে শক্তি প্রকল্প স্থাপনে সহায়তা করা। বায়োগ্যাস, বায়ো–সিএনজি/এনরিচড বায়োগ্যাস/কমপ্রেসড বায়োগ্যাস উৎপাদনের জন্য বর্জ্য–থেকে–শক্তি প্ল্যান্টের সফল কমিশনিংয়ের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় আর্থিক সহায়তার (সিএফএ) আকারে প্রকল্প বিকাশকারীদের ভর্তুকি এবং বাস্তবায়নকারী ও পরিদর্শন সংস্থাগুলিকে পরিষেবা চার্জ প্রদান করা হয়।[৪৫]

স্থানীয়ভাবে উৎপন্ন পৌর কঠিন বর্জ্য প্রক্রিয়াকরণ করে এবং কমপ্রেসড বায়োগ্যাসে (সিবিজি) রূপান্তরিত করে বায়োগ্যাস তৈরি করা যেতে পারে। উৎপন্ন সিবিজি একটি পে–অ্যাজ–ইউ–গো মডেলের মাধ্যমে বিতরণ করা যেতে পারে, এমনকি দূরবর্তী জনসম্প্রদায়ের কাছে পাইপলাইনের মাধ্যমে বা বোতলজাত আকারেও।

যখন ব্যাকটেরিয়ার একটি নির্দিষ্ট গোষ্ঠী অক্সিজেন ব্যতিরেকে জৈব পদার্থ হজম করে, তখন বায়োগ্যাস উৎপাদিত হয়। অ্যানঅ্যারোবিক পাচনের এই প্রক্রিয়ায় একটি সিল করা পাত্রে নিয়ন্ত্রিত অবস্থায় জৈব পদার্থ থেকে রাসায়নিক শক্তি আহরণ করা হয়। বায়োগ্যাস প্ল্যান্টের সাধারণ প্রক্রিয়া প্রবাহ চিত্র ৩–এ উপস্থাপন করা হয়েছে। এর মধ্যে জড়িত পদক্ষেপগুলি হল:

হাইড্রোলিসিস/লিকুইফেকশন — (C6H10O5)n + nH2O → n(C6H12O6)

অ্যাসিড ফরমেশন (অ্যাসিডোজেনেসিস এবং অ্যাসিটোজেনেসিস) — n(‌C6H10O5) + → nCH3COOH

মিথেনোজেনেসিস – 3nCH3COOH → nCH4 + CO2

বায়োগ্যাসের গুণমান (মিথেন সামগ্রী ও পিএইচ মান) বজায় রাখার জন্য প্রায় ৩০ দিনের রিটেনশন টাইম প্রয়োজন। পরিশোধন প্রক্রিয়া সালফার, সিওটু ও অন্য অশুদ্ধ উপাদানকে বায়ো–মিথেনে উন্নীত করার জন্য (>৯০ শতাংশের সিএইচ৪ সামগ্রী) বিচ্ছিন্ন করে। এটি বিভিন্ন ধরনের হিটিং ও বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। প্রতি কেজি জৈব বর্জ্য প্রায় ০.০৩৫ থেকে ০.০৪ এমথ্রি গ্যাস সরবরাহ করতে পারে। [৪৬]  ১এমথ্রি গ্যাস ০.৪২কেজি এলপিজির সমতুল্য।[৪৭]

চিত্র : একটি বায়োগ্যাস প্ল্যান্টের প্রক্রিয়া ফ্লোচার্ট

সূত্র: লিউ ‌ও অন্যরা, ২০১১[৪৮]

বর্জ্য–থেকে–শক্তি ব্যবসা মডেল

রান্নার গ্যাস সরবরাহের স্থানীয় পরিবেশক এবং অপারেটর হিসাবে কাজ করার জন্য সীমিত দায় অংশীদারি (এলএলপি) বা সমবায়ের আকারে যৌথ উদ্যোগ স্থাপন করা যেতে পারে। প্রকল্পের বিকাশকারী/জেনারেটর বায়োগ্যাস উৎপাদনের জন্য দায়ী থাকবে, যা একটি পাত্রে সংরক্ষণ ও পরিবহণ করা হবে। এন্টারপ্রাইজের অর্থনৈতিক কার্যকারিতা নিম্নলিখিত বিষয়গুলির উপর নির্ভর করবে:

• বছরব্যাপী প্রাপ্যতার জন্য জৈব বর্জ্য সরবরাহের নির্ভরযোগ্যতা

  • বর্জ্য সরবরাহ এবং পৃথগীকরণের ব্যয় (জমির মূল্য হিসাবের মধ্যে গণ্য করা হবে না, যেহেতু অ্যানেরোবিক পাচন ও পরিশোধন ব্যবস্থা গ্রাম পঞ্চায়েতের বর্জ্য পরিচালন ইউনিটে সহ–অবস্থিত হবে)
    • ভোক্তার চাহিদা ও পরিচ্ছন্ন রান্নার জ্বালানির জন্য অর্থ প্রদানের ইচ্ছা
    • গ্রামীণ প্রতিষ্ঠানের শাসন ও পরিচালন ক্ষমতা
    ‌• স্থানীয় সরকারের সমর্থন
    • মূলধন সরঞ্জাম সরবরাহ এবং ইনস্টলেশনের জন্য তহবিলের প্রাপ্যতা‌একটি সাধারণ ১৫টিপিডি প্ল্যান্টের মূলধনী ব্যয় প্রায় ₹৭০ মিলিয়ন (জমি ও বোতলজাত করার খরচ ব্যতীত) এবং গড় বার্ষিক পরিচালন ব্যয় ₹৯.৬ মিলিয়ন। এই জাতীয় প্ল্যান্টের প্রাথমিক ব্যয় মিশ্রিত–অর্থায়ন বিকল্পগুলির মাধ্যমে করা যেতে পারে। অনুপাতটি উপলব্ধ প্রকল্পগুলির উপর নির্ভর করবে (কেন্দ্রীয় আর্থিক সহায়তা বায়োগ্যাসের জন্য ₹৫০ মিলিয়ন এবং কমপ্রেসড বায়োগ্যাসের জন্য ₹১০০ মিলিয়ন ), এবং বাকি মূলধন, বিশেষ করে বিতরণ উদ্যোগের জন্য সিএসআর–ভিত্তিক তহবিল বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ঋণের মাধ্যমে আসতে পারে। সমাজভিত্তিক গ্রামীণ উদ্যোগের (পরিবেশক) জন্য কার্যকরী মূলধন আসতে পারে জনহিতকর সংস্থা থেকে, এবং তা এমন মূল্যে রান্নার জ্বালানি সরবরাহ নিশ্চিত করবে যা জনসম্প্রদায় দিতে ইচ্ছুক। ২০২০ সালে সিইইডব্লিউ–র একটি সমীক্ষায়[৪৯] দেখা গেছে যে যদি প্রতি পরিবারের প্রতিটি এলপিজি রিফিল ব্যয় ₹৪৫০–এর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে, তবে এলপিজি ব্যবহারের ফাঁক পূরণ করা সম্ভব হবে।চিত্র ৪–এ পরিচ্ছন্ন রান্নার জ্বালানি বিতরণ কীভাবে পরিকল্পিতভাবে বর্ণিত দুটি পথের একটি নিতে পারে তা দেখানো হয়েছে।

চিত্র ৪: স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত পরিচ্ছন্ন রান্নার জ্বালানি বিতরণমডেল ১: একটি পাইপলাইনের মাধ্যমে গ্যাস সরবরাহ

‌মডেল ২:‌ বোতলজাত বায়ো–গ্যাস সরবরাহ

সূত্র:‌ লেখকদের নিজস্ব

মডেল  হল একটি পে–অ্যাজ–ইউ–গো (পিএওয়াইজি) মডেল যা এনার্জি মিটার সহ বিদ্যুতের মতো একটি পরিষেবা মডেল। গ্রাহক পরিষেবা পাওয়ার আগে একটি সাবস্ক্রিপশন/সংযোগ ফি প্রদান করে, এবং ব্যবহার সংযুক্ত করা হয় প্রদত্ত পরিমাণের বা প্রদত্ত পরিমাণ ব্যবহারের সঙ্গে। পিএওয়াইজি গ্যাস মিটার সহ পাইপলাইনের মাধ্যমে রান্নার গ্যাস বিতরণ করা যেতে পারে। বায়োগ্যাস প্রতি ইউনিট (এমথ্রি) ভিত্তিতে ন্যূনতম নির্দিষ্ট মূল্য (নির্দিষ্ট বিদ্যুতের শুল্কের অনুরূপ) নির্ধারণ করা যেতে পারে, এবং বাকিটা ব্যবহারের উপর ভিত্তি করে চার্জ করা যেতে পারে। এই মডেলের সম্পর্কিত ঝুঁকিগুলির মধ্যে রয়েছে চুরি, নিরাপত্তা, চাপের ওঠানামা ও কম সংগ্রহের দক্ষতা—যা অনির্ভরযোগ্যতা বা উচ্চ বিক্রয়োত্তর পরিষেবা খরচের দিকে নিয়ে যেতে পারে, যার ফলে এর গ্রহণ কম হতে পারে এবং এটি একটি অব্যবহারযোগ্য ব্যবসায়িক মডেল হয়ে দাঁড়াতে পারে।

মডেল  হল একটি ভিন্ন ফর্ম ফ্যাক্টর ও রিফিলিং খরচ–সহ বোতলজাত এলপিজি বিতরণের অনুরূপ। তবে প্রতি মাসে রিফিল প্রতি ₹৪৫০ দামের লক্ষ্য অর্জন করতে হলে ক্রস–সাবসিডির প্রয়োজন হতে পারে। উচ্চমূল্যে স্থানীয় বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে বায়োগ্যাস সরবরাহের মাধ্যমে তা অর্জন করা যেতে পারে। বোতলজাত করা এবং পরিবহণের উচ্চ ব্যয়ের কারণে এই মডেলের ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে উচ্চ মূলধন ও পরিচালন ব্যয়। কমিউনিটি–ভিত্তিক গ্রামীণ উদ্যোগের (বিতরণকারী) জন্য একটি সুস্থ অপারেটিং মার্জিন রাখতে কার্যকরী মূলধনের একটি অবিচ্ছিন্ন জোগান প্রয়োজন হতে পারে।

উপসংহার

গ্রামীণ ও আধা–শহর এলাকায় পৌর জৈব বর্জ্য থেকে সিবিজি উৎপাদন ও বিতরণ, বিশেষ করে পে–অ্যাজ–ইউ–গো মডেল ব্যবহার করে, ভারতের গ্রামীণ অঞ্চলের ভোক্তাদের জন্য একটি সস্তা বিকল্প হতে পারে, এবং এভাবে  রান্নার কঠিন জ্বালানির কারণে গৃহস্থালির বায়ুদূষণ এবং রান্নার জ্বালানি আমদানির কারণে বৈদেশিক মুদ্রার বহিঃপ্রবাহের সমস্যাগুলি সমাধান করা যায়। লক্ষ লক্ষ গ্রামীণ ও বঞ্চিত পরিবারের জন্য ভর্তুকিযুক্ত এলপিজি কিন্তু ভারতকে সবুজ পরিবর্তন থেকে দূরে সরিয়ে রাখে।

ভারতে বায়োগ্যাস কর্মসূচি, বায়োমিথেনেশন প্রযুক্তি, দক্ষতা, এবং উন্নয়নশীল বিশ্বের কাছে নিজস্ব মডেল প্রদর্শনের জন্য আর্থিক ব্যবস্থার দীর্ঘ ইতিহাস আছে। এখানে আলোচিত প্রযুক্তি ও ব্যবসায়িক মডেলগুলি, যদি পরীক্ষিত ও গৃহীত হয়, তাহলে তা শক্তির স্থানান্তর ত্বরান্বিত করতে এবং ন্যায়সঙ্গত রূপান্তর–অর্থায়ন প্রদর্শন করতে সাহায্য করতে পারে।


এন্ডনোট

(‌হাইপার লিঙ্কের জন্য এখানে মূল নিবন্ধটি দেখুন:‌https://www.orfonline.org/research/energy-transition-through-waste-to-energy-projects-in-peri-urban-and-rural-areas/

[১] স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রক, ভারত সরকার, বায়ুদূষণ ও স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিষয়গুলির উপর স্টিয়ারিং কমিটির রিপোর্ট, আগস্ট ২০১৫

[২] সুস্মিতা পট্টনায়ক, সৌরভ ত্রিপাঠী, ও অভিষেক জৈন, রোডম্যাপ ফর অ্যাকসেস টু ক্লিন কুকিং এনার্জি ইন ইন্ডিয়া, সিইইডব্লিউ, অক্টোবর ২০১৯

[৩] মঞ্জুশ্রী ব্যানার্জি, রেসিডেনসিয়াল এলপিজি ইন ইন্ডিয়া–অ্যাকসেস অ্যান্ড ইউসেজ প্যাটার্ন  ডিউরিং প্রি–লকডাউন, লকডাউন অ্যান্ড পোস্ট–লকডাউন, ওআরএফ, ডিসেম্বর ১৯, ২০২২

[৪] অখিলেশ সতী, লিডিয়া পাওয়েল, ও বিনোদ কুমার তোমর, হাউজহোল্ড এলপিজি অ্যাকসেস ইন ইন্ডিয়া:‌ অ্যান আপডেট, ওআরএফ, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২ https://www.orfonline.org/expert-speak/household-lpg-access-in-india/

[৫] বিবেক গুপ্ত, “২০১৬ সাল থেকে পিএমইউওয়াই সুবিধাভোগীরা অ-উজ্জ্বলা গ্রাহকদের থেকে কম এলপিজি ব্যবহার করছেন: আরটিআই ডেটা,” দ্য ওয়্যার, ৫ অক্টোবর, ২০২২, https://thewire.in/government/pm-ujjwala-scheme-beneficiaries-consuming-less-lpg-rti-data

[৬] পেট্রোলিয়ম ও প্রাকৃতিক গ্যাস মন্ত্রক, ভারত সরকার, পিএমইউওয়াই সম্পর্কে, https://www.pmuy.gov.in/about.html

[৭] ত্বয়েশ মিশ্র, “কেন্দ্র এলপিজি ভর্তুকির সরাসরি সুবিধা স্থানান্তরের জন্য ৪,০০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে,” বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড, ফেব্রুয়ারি ১, ২০২২, https://www.business-standard.com/article/economy-policy/centre-allocates -rs-4-000-crore-for-direct-benefit-transfer-of-lpg-subsidy-122020101293_1.html

[৮] বিবেক গুপ্ত, “২০১৬ সাল থেকে পিএমইউওয়াই সুবিধাভোগীরা অ-উজ্জ্বলা গ্রাহকদের থেকে কম এলপিজি ব্যবহার করছেন: আরটিআই ডেটা,” দ্য ওয়্যার, ৫ অক্টোবর, ২০২২, https://thewire.in/government/pm-ujjwala-scheme-beneficiaries-consuming-less-lpg-rti-data

[৯] দিব্যানী দুবে, “কেন কেন্দ্রের ৯.৪৯ কোটি এলপিজি সংযোগ বিতরণের দাবি শুধুমাত্র অর্ধেক গল্প,” স্ক্রোল.ইন, অক্টোবর ১০, ২০২২,
why-the-centres-claim-of-distributing-9-49-crore-lpg-connections-is-only-half-the-story

[১০] “ভারত তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের আমদানি,” ট্রেডিং ইকনমিকস, https://tradingeconomics.com/india/imports-of-liquefied-petroleum-gas

[১১] নতুন ও নবীকরণযোগ্য শক্তি মন্ত্রক, ভারত সরকার, বর্জ্য থেকে শক্তি কর্মসূচির নির্দেশিকা, ২ নভেম্বর, ২০২২, https://mnre.gov.in/img/documents/uploads/file_f-1667463970882.pdf

[১২] ইউএসইপিএ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সরকার, “ল্যান্ডফিল গ্যাস সম্পর্কে প্রাথমিক তথ্য,” https://www.epa.gov/lmop/basic-information-about-landfill-gas#:~:text=Landfill%20gas%20( LFG)%20is%20a,%20non%2Dmethane%20organic%20compounds

[১৩] বর্জ্য অ্যাটলাস, “ভারত: সাধারণ দেশের প্রোফাইল,” https://www.atlas.d-waste.com/index.php?view=country_report&country_id=12

[১৪] বিশ্বব্যাঙ্ক, সুন্দরবনের টেকসই উন্নয়নের জন্য স্থিতিস্থাপকতা গড়ে তোলা, ২০১৪, https://documents1.worldbank.org/curated/en/879351468259748207/pdf/880610REVISED00ns000Strategyf0Report.

[১৫] ইপসা মহাপাত্র, সাই চন্দন দাস, ও সোনিয়া সামন্তরায়, “কটক জেলার গ্রামীণ এলাকায় রান্নার জ্বালানি ব্যবহারের কারণে মহিলাদের উপর স্বাস্থ্যের প্রভাব, ওড়িশা”, জার্নাল অফ ফ্যামিলি মেডিসিন অ্যান্ড প্রাইমারি কেয়ার ৭(১) (২০১৮): ১১- ১৫, https://journals.lww.com/jfmpc/Fulltext/2018/07010/Health_impact_on_women_using_solid_cooking_fuels.3.aspx

[১৬] ডব্লিউএইচও, “গৃহস্থালি বায়ু দূষণ: মূল তথ্য,” https://www.who.int/news-room/fact-sheets/detail/household-air-pollution-and-health

[১৭] বিশ্ব ব্যাঙ্ক, সুন্দরবনের টেকসই উন্নয়নের জন্য স্থিতিস্থাপকতা গড়ে তোলা, ২০১৪, https://documents1.worldbank.org/curated/en/879351468259748207/pdf/880610REVISED00ns000Strategyf0Report.

[১৮] পেট্রোলিয়ম ও প্রাকৃতিক গ্যাস মন্ত্রক, ভারত সরকার, পিএমইউওয়াই সম্পর্কে, https://www.pmuy.gov.in/about.html

[১৯] শ্বেতা মরিয়ম কোশি, “ওভারকামিং ইন্ডিয়া’‌ ক্লিন কুকিং চ্যালেঞ্জ,” ডাউন টু আর্থ, ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৯, https://www.downtoearth.org.in/blog/energy/overcoming-india-s-clean-cooking-challenge-68562

[২০] অমরজিৎ সিং, “উজ্জ্বলা প্রকল্প: ৯০ লাখ ২০২১-২২ সালে প্রথম এলপিজি রিফিলও কিনতে পারেনি,” টাইমস অফ ইন্ডিয়া, ভোপাল, ৯ মে, ২০২২ https://timesofindia.indiatimes.com/city/ bhopal/ujjwala-scheme-90l-couldnt-buy-even-1st-lpg-refill-in-21-22/articleshow/91425841.cms

[২১] অখিলেশ সতী, লিডিয়া পাওয়েল, ও বিনোদ কুমার তোমর, হাউজহোল্ড এলপিজি অ্যাকসেস ইন ইন্ডিয়া:‌ অ্যান আপডেট, ওআরএফ, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২  https://www.orfonline.org/expert-speak/household-lpg-access-in-india/

[২২] মঞ্জুশ্রী ব্যানার্জি, রেসিডেনসিয়াল এলপিজি ইন ইন্ডিয়া–অ্যাকসেস অ্যান্ড ইউসেজ প্যাটার্ন  ডিউরিং প্রি–লকডাউন, লকডাউন অ্যান্ড পোস্ট–লকডাউন,  https://www.orfonline.org/expert-speak/residential-lpg-in-india-access-and-usage-pattern-during-pre-lockdown-lockdown-and-post-lockdown/

[২৩] সুনীল মনি ও অন্যরা, স্টেট অফ ক্লিন কুকিং এনার্জি অ্যাকসেস ইন ইন্ডিয়া, সিইইডব্লিউ, সেপ্টেম্বর ২০২১, https://www.ceew.in/publications/state-of-clean-cooking-energy-access-in-india-ires-2020-report

[২৪] মনি ও অন্যরা, স্টেট অফ ক্লিন কুকিং এনার্জি অ্যাকসেস ইন ইন্ডিয়া

[২৫] মনি ও অন্যরা, স্টেট অফ ক্লিন কুকিং এনার্জি অ্যাকসেস ইন ইন্ডিয়া

[২৬] “আর্থিক বছর ২০০৮ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ভারত জুড়ে তরল পেট্রোলিয়াম গ্যাস বিতরণকারীদের সংখ্যা,” স্ট্যাটিস্টা, https://www.statista.com/statistics/1076423/india-lpg-distributors/

[২৭] মনি ও অন্যরা, স্টেট অফ ক্লিন কুকিং এনার্জি অ্যাকসেস ইন ইন্ডিয়া

[২৮] সতী, পাওয়েল, ও তোমর, হাউজহোল্ড এলপিজি অ্যাকসেস ইন ইন্ডিয়া:‌ অ্যান আপডেট

[২৯] বিশ্ব ব্যাঙ্ক, সুন্দরবনের টেকসই উন্নয়নের জন্য স্থিতিস্থাপকতা গড়ে তোলা, ২০১৪, https://documents1.worldbank.org/curated/en/879351468259748207/pdf/880610REVISED00ns000Strategy0Report.pdf

[৩০] কাজা সিলপা ও অন্যরা, হোয়াট আ ওয়েস্ট ২.০: আ গ্লোবাল স্ন্যাপশট অফ সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট টু ২০৫০, ওয়াশিংটন, ডিসি: বিশ্ব ব্যাঙ্ক, ২০১৮, https://openknowledge.worldbank.org/handle/10986/30317

[৩১] সেন্ট্রাল পলিউশন কন্ট্রোল বোর্ড (সিপিসিবি) অনুসারে, দেশে উৎপন্ন কঠিন বর্জ্যের মোট পরিমাণ হল ১৬০০৩৮.৯ টিপিডি। সম্ভবত, সিপিসিবি সংকলন শুধুমাত্র শহুরে স্থানীয় সংস্থার (ইউএলবি) সঙ্গে সম্পর্কিত, এবং জনসংখ্যার ৬৫ শতাংশ যে গ্রামীণ ভারতে বাস করে তা বিবেচনা করে এটি একটি স্থূল অবমূল্যায়ন হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট (২০২০-২১), সিপিসিবি-র বার্ষিক রিপোর্টের সারণি ৪.০-এর ৩৪ নম্বর সারিটি লক্ষদ্বীপের সঙ্গে সম্পর্কিত, যার একটিও ইউএলবি নেই এবং সেই জন্য লক্ষদ্বীপের দ্বীপগুলিতে তৈরি হওয়া কঠিন বর্জ্যের কোনও উল্লেখও নেই। রিপোর্ট যাই হোক না কেন, সিপিসিবি ডেটা দেশে উৎপন্ন মোট কঠিন বর্জ্য (এসডব্লিউ) সম্পর্কিত এবং এমএসডব্লিউ ও অন্যান্য বর্জ্যে বিভক্ত নয়।

[৩২] বর্জ্য অ্যাটলাস, “ভারত: সাধারণ দেশের প্রোফাইল”, http://www.atlas.d-waste.com/index.php?view=country_report&country_id=12

[৩৩] জে জি উইকস, জে সি মুসা ওয়াসিল, কে মালাভে লামাস, এবং সি মোরালেস অ্যাগ্রিনজোনি, “ছোট উন্নয়নশীল দ্বীপরাষ্ট্রগুলির জন্য কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ব্যবস্থা,” গ্লোবাল জার্নাল অফ এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট ৭(২), (২০২১): ২৫৯-২৭২, https ://www.gjesm.net/article_239924.html

[৩৪] ডব্লিউবিপিসিবি, পশ্চিমবঙ্গ সরকার, পরিবেশ প্রতিবেদন ২০১৬, জুন ২০১৭, https://www.wbpcb.gov.in/writereaddata/files/SOE_Report_2016_1.pdf

[৩৫] ডব্লিউবিপিসিবি, পশ্চিমবঙ্গ সরকার, ২০২০-২০২১ সালের জন্য কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ম, ২০১৬, আগস্ট ২০২১, https://www.wbpcb.gov.in/files/Th-07-2021-07-23-47SWM_AR_2021.pdf

[৩৬] জয়ন্ত বসু, “‘বর্জ্য’ বাংলার বিশ্রী অনুশীলন,” দ্য টেলিগ্রাফ, জুন ১, ২০১৮, https://www.telegraphindia.com/west-bengal/rotten-practices-of-waste-bengal/cid/ 1418023

[৩৭] আইপিসিসি, কঠিন বর্জ্য নিষ্কাশন থেকে সিএইচ৪ নির্গমন, জাতীয় গ্রিনহাউস গ্যাস ইনভেন্টরিগুলিতে ভাল অনুশীলন নির্দেশিকা এবং অনিশ্চয়তা ব্যবস্থাপনা, মে ২০০০, https://www.ipcc- nggip.iges.or.jp/public/gp/bgp/5_1_CH4_Solid_Waste .pdf

[৩৮] পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রক, ভারত সরকার, “সংজ্ঞা,” সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট রুলস, ২০১৬, https://www.wbpcb.gov.in/writereaddata/files/SWM%20Rules%202016.pdf

[৩৯] দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা প্রশাসন, পশ্চিমবঙ্গ সরকার, জেলা পরিবেশ পরিকল্পনা ২০২২, https://s24pgs.gov.in/assets/webdoc/mediaupload/ec5dcb16b0b7cd37b1c9e6058e884c5d.pdf
[
৪০] আইপিসিসি ব্যবহার করে নির্গমন ফ্যাক্টর ও বিশ্লেষণ, বর্জ্য, জাতীয় গ্রিনহাউস গ্যাস ইনভেন্টরিতে ভাল অনুশীলন নির্দেশিকা এবং অনিশ্চয়তা ব্যবস্থাপনা, মে ২০০০, https://www.ipcc.ch/site/assets/uploads/2018/03/5_Waste-1 .pdf

[৪১] সি পি এইচ ই ই ও, ভারত সরকার, মিউনিসিপ্যাল সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট ম্যানুয়াল, 2016, https://cpheeo.gov.in/upload/uploadfiles/files/Part2.pdf

[৪২] এইচডিএফসি ব্যাঙ্ক, “এইচডিএফসি ব্যাঙ্ক ইন্দোরে এশিয়ার বৃহত্তম বর্জ্যের জ্বালানি কেন্দ্রে অর্থায়ন করে,” https://www.hdfcbank.com/personal/about-us/news-room/press-release/2022/q1/hdfc-release/2022/q1/hdfc-bank-finances-asias-largest-waste-to-energy-plant-in-indore

[৪৩] জি২০, টাস্ক ফোর্স-৪: রিফুয়েলিং গ্রোথ: ক্লিন এনার্জি অ্যান্ড গ্রিন ট্রানজিশন, https://t20ind.org/taskforce/refuelling-growth-clean-energy-and-green-transitions

[৪৪] পরিবেশ, বন, ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রক, ভারত সরকার, কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ম, ২০১৬, https://www.wbpcb.gov.in/writereaddata/files/SWM%20Rules%202016.pdf

[৪৫] নতুন ও পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি মন্ত্রক, ভারত সরকার, বর্জ্য থেকে শক্তি কর্মসূচির জন্য নির্দেশিকা, নভেম্বর 2, 2022, https://mnre.gov.in/img/documents/uploads/file_f-1667463970882.pdf

[৪৬] এল প্যালাসিওস, ও অন্যরা, ক্যাভিয়া পোরসেলাস বায়োমাস দ্বারা প্রাপ্ত বায়োগ্যাসের ক্যালোরিফিক ভ্যালু, কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ট্র‌্যানজ্যাকশন ৮০ (২০২০): ২৭১-২৭৬, https://www.aidic.it/cet/20/80/046 .pdf

[৪৭] নতুন ও পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি মন্ত্রক, ভারত সরকার, বায়োগ্যাস বেসিকস, https://biogas.mnre.gov.in/faqs

[৪৮] এক্স লিউ, জেড ইয়ান, জেড-বি ইউই, “বায়োগ্যাস,”ইন কম্প্রিহেনসিভ  বায়োটেকনোলজি (দ্বিতীয় সংস্করণ), সম্পাদনা মারে মু-ইয়ং (একাডেমিক প্রেস, ২০১১), ৯৯–১১৪, https://www.sciencedirect.com/science/article/pii/B9780080885049001653?via%3Dihub

[৪৯] মনি ও অন্যরা, স্টেট অফ ক্লিন কুকিং এনার্জি অ্যাকসেস ইন ইন্ডিয়া

The views expressed above belong to the author(s). ORF research and analyses now available on Telegram! Click here to access our curated content — blogs, longforms and interviews.

Authors

Anamitra Anurag Danda

Anamitra Anurag Danda

Anamitra Anurag Danda is Senior Visiting Fellow with ORF’s Energy and Climate Change Programme. His research interests include: sustainability and stewardship, collective action and institution ...

Read More +
Aritra Bhowmik

Aritra Bhowmik

Aritra Bhowmik has a Masters degree in Energy Management. He leads the Energy Transition and Rural Enterprise Development for WWF-India in the Sundarbans.

Read More +